মুম্বই: ২৩-২৮ মার্চ পুণেতেই অনুষ্ঠিত হবে ভারত-ইংল্যান্ড ওয়ান-ডে সিরিজ। তবে ফাঁকা গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচগুলি। মহারাষ্ট্রে নতুন করে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় এমনই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল মহারাষ্ট্র সরকার। প্রাথমিকভাবে পুণে থেকে ওয়ান-ডে সিরিজ সরে যাওয়ার একটা সম্ভাবনা তৈরি হলেও ম্যাচ আয়োজনের ব্যাপারে শেষ অবধি সিলমোহর দিল মহারাষ্ট্র সরকার।

শনিবার এব্যাপারে মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের তরফে প্রেসিডেন্ট বিকাশ কাকাটকর এবং গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মিলিন্দ নাভেরকর একটি বৈঠকে বসেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে। সেই বৈঠকের পরেই ঠিক হয় পুণেতেই অনুষ্ঠিত হবে ভারত-ইংল্যান্ড ওয়ান-ডে সিরিজ, তবে খেলাগুলি হবে দর্শকশূন্য গ্যালারিতে। একইসঙ্গে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী ক্রিকেটার এবং সাপোর্ট স্টাফদের নিরাপত্তার জন্য এমসিএ প্রেসিডেন্টকে প্রয়োজনীয় সবরকম ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।

মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন এক বিবৃতি মারফৎ জানিয়েছে, ‘মহারাষ্ট্রে সাম্প্রতিক সময়ে কোভিড সংক্রমণ বৃদ্ধির বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিচার করে মননীয় মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ম্যাচগুলি দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে খেলা হবে।’ বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘মুখ্যমন্ত্রী মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতিকে অনুরোধ করেছেন যাতে ক্রিকেটার এবং অফিসিয়ালদের কথা ভেবে প্রয়োজনীয় সবরকম সতর্কতা গ্রহণ করা হয়। এরইসঙ্গে তিনম্যাচের ওয়ান-ডে সিরিজ অনুষ্ঠিত হওয়ার ব্যাপারে সমস্ত অনিশ্চয়তা দূর হল।’

বৃহস্পতিবারই নতুন করে মহারাষ্ট্রে ৮ হাজার জনের করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে৷ একই দিনে মুম্বইয়ে ১১০০ মানুষের কোভিড পজিটিভ হওয়ার খবর সামনে এসেছে৷ এই মুহূর্তে আমদাবাদে টেস্ট সিরিজ খেলছে ভারত ও ইংল্যান্ড৷ চেন্নাইয়ে বায়ো-বাবলে থেকে প্রথম দু’টি টেস্ট খেলার পর আমদাবাদে সিরিজের শেষ দু’টি টেস্ট খেলছে দুই দল৷ বৃহস্পতিবারই শেষ হয়েছে সিরিজের তৃতীয় তথা পিঙ্ক বল টেস্ট৷ মোতেরায় নরেন্দ্র মোদী নামাঙ্কিত নবনির্মিত বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রায় ৫০ হাজার দর্শককে মাঠে ঢোকার অনুমতি দিয়েছিল বিসিসিআই৷ সিরিজের শেষ টেস্টেও একই নিয়ম বলবৎ রেখেছে বোর্ড৷ এর আগে চেন্নাইয়ে দ্বিতীয় টেস্টেও ৫০ শতাংশ দর্শকের উপস্থিতি ছিল স্টেডিয়ামে।

৪ মার্চ থেকে আমদাবাদে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের চতুর্থ তথা শেষ টেস্ট৷ টেস্ট সিরিজের পর আমদাবাদেই হওয়ার কথা পাঁচ ম্যাচের টি-২০ সিরিজ৷ তারপর দুই দলের পুণে উড়ে যাবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.