স্টাফ রিপোর্টার, বসিরহাট: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রশাসনিক বৈঠকে স্বামী নিখিল জৈনকে নিয়ে ঢুকতে পারলেন না স্থানীয় সাংসদ নুসরত জাহান। পরে ক্ষুব্ধ হয়ে সেখান থেকে চলে যান তিনি।

বাংলার বিপর্যস্ত অবস্থা পরিদর্শন করতে শুক্রবার রাজ্যে আসেন মোদী। এদিন হেলিকপ্টারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে নিয়ে দুই ২৪ পরগনার বিপর্যস্ত এলাকা ঘুরে দেখেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন আরও চার কেন্দ্রীয়মন্ত্রী। এরপরে বসির‌হাট কলেজে বৈঠক করেন।

উল্লেখ্য, ঘূর্ণিঝড় আমফানে দারুণ ক্ষতিগ্রস্থ বসিরহাট। এখনও পর্যন্ত সেখানে ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদিন বসিরহাট কলেজ লাগোয়া পিছনের মাঠে তৈরি অস্থায়ী একটি হেলিপ্যাড তৈরি হয়েছিল। সেখানেই এক চপার থেকে নামেন মুখ্যমন্ত্রী-রাজ্যপাল-প্রধানমন্ত্রী।

মোদীকে স্বাগত জানাতে হাজির হন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, দেবশ্রী চৌধুরি-সহ বিজেপি নেতৃত্ব। বসিরহাট কলেজেই এরপর বৈঠকে বসেন তাঁরা। সেই সময় কলেজে যান সাংসদ নুসরতও। তবে তিনি একা নন, সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্বামী নিখিল জৈন এবং দুই আপ্তসহায়ক।

কলেজে ঢোকার মুখে নুসরতকে প্রথমে বাধা দেওয়া হয়। তবে তিনি নিজের সাংসদ পরিচয় দেওয়ার পর প্রবেশের অনুমতি পান বলে জানা যায়। তাঁর সঙ্গে ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করেন নিখিলও। কিন্তু নুসরতের স্বামী ও দুই আপ্তসহায়ককে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়নি। এসপিজির তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, সাংসদকে একাই ঢুকতে হবে বৈঠকে।

তাঁর সঙ্গে কেউ ভিতরে যেতে পারবেন না। সেকথা শুনে রেগে গিয়ে বচসায় জড়ান নুসরত। কিন্তু তাতেও কোনও লাভ হয়নি। নিখিল জৈন ভিতরে ঢুকতে না পারায় সেখান থেকে বেরিয়ে যান স্থানীয় তৃণমূল সাংসদ। এখনও পর্যন্ত বিষয়টি নিয়ে তিনি কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি।