স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ময়ূরের সঙ্গে ভিডিও পোস্ট করা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ব্যাঙ্গাত্মকভাবে বিঁধলেন তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান। মোদীর উদ্দেশ্যে টুইটারে লিখলেন, “ময়ূরের সঙ্গে ভিডিও পোস্ট না করে কর্মসংস্থানে নজর দিন।”

নুসরত লিখেছেন, “মোদীজি যখন ময়ূরের সঙ্গে ভিডিও পোস্ট করতে ব্যস্ত, তখন এদিকে দেশে বেকারত্বের হার উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেয়েই চলেছে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাষণ দেওয়ার পাশাপাশি দেশের ২ কোটি বেকারদের জন্য কর্মসংস্থান করাও উচিত ওনার!”

গত রবিবার ইনস্টাগ্রামে ১ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড এর একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। যে ভিডিওতে প্রধানমন্ত্রীকে নিজের বাসভবনে ময়ূরের সঙ্গে বিশেষ সময় কাটাতে দেখা গিয়েছে।

দেখা গিয়েছে, নরেন্দ্র মোদী নিজে হাতে করে খাবার খেতে দিচ্ছেন ময়ূরকে। কোথাও বা দেখা যাচ্ছে তার শোয়ার ঘর বসার ঘরে অবলীলায় ঘুরে বেড়াচ্ছে ময়ূর। কোথাও আবার বাসভবনের লনে পায়চারিরত মোদীর সঙ্গে পেখম মেলে ঘুরে বেড়াচ্ছে ময়ূর। প্রধানমন্ত্রীর ময়ূর প্রীতির এই ভিডিও রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। ‘প্রেশাস মোমেন্ট’ অর্থাৎ ‘মূল্যবান মুহূর্ত’।

এই শিরোনামেই টুইটারে ভিডিয়োটি প্রকাশ করেন মোদী। এই ভিডিওর পাশাপাশি নিচে ময়ূরকে নিয়ে একটি কবিতাও লিখেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বলে রাখি, দেশে বেকারত্ব নিয়ে কদিন আগেই প্রধানমন্ত্রীকে কড়া ভাষায় বিঁধেছিলেন তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান।

টুইটারে লিখেছিলেন,“আমাদের দেশে এত জনসংখ্যা, তার ভিত্তিতে যুবপ্রজন্মের জন্য কী করছেন নরেন্দ্র মোদী? ওদের ভবিষ্যতের জন্য কি শুধু বেকারত্বই রেখেছেন? দেশের তরুণ প্রজন্মের নাড়ি বুঝতে আপনি ব্যর্থ! ওদের অন্ধকার ভবিষ্যতের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন আপনি। সত্যিই লজ্জাজনক!”

দেশের অর্থনীতির সঙ্গে পাবজি ব্যান প্রসঙ্গ টেনেও প্রধানমন্ত্রীকে বিঁধেছেন নুসরত জাহান। টুইটারে নুসরত লিখেছেন “এখন না পাবজি ফিরে আসবে না দেশের অর্থনীতি পুনরুজ্জীবিত হবে! মোদীবাবু জিডিপি বেকাবু।”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I