স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: লাভ জিহাদ নিয়ে বিজেপি নেতৃত্বকে কড়া আক্রমণ করলেন বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান। তাঁর বক্তব্য, “ভালবাসা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত। আমি কাকে ভালবাসব তা নিয়ে কারও কিছু বলার থাকতে পারে না।”

শনিবার কলকাতায় জগদ্ধাত্রী পুজোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। সেখানেই বিজেপিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ শানান অভিনেত্রী-সাংসদ। ‘লাভ জেহাদ’ রুখতে আইন আনার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এটা অত্যন্ত দুঃখের বিষয়। লাভ এবং জেহাদ কখনও এক হতে পারে না। ভালবাসা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত। আমি কাকে ভালবাসব তা নিয়ে কারও কিছু বলার থাকতে পারে না। বিজেপিকে আমার একটাই পরামর্শ তারা আগে ভালবাসা যে ব্যক্তিগত সেটা বুঝুক। তাদের ভালবাসতেও শেখা উচিত।”

উল্লেখ্য, বিজেপি শাসিত উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, কর্নাটক, আসাম সরকার লাভ জেহাদ ঠেকাতে কড়া আইন আনার প্রস্তাব দিয়েছে। যোগীর রাজ্যে স্বরাষ্ট্র দফতরের তরফে সেই প্রস্তাব আইন দফতরে পৌঁছেও গিয়েছে। লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার গেরুয়া বাহিনী। এই সময় বিজেপি নেতাদের উদ্দেশে নুসরতের এই মন্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ।

এলাহাবাদ হাইকোর্ট সম্প্রতি রায়ে জানিয়েছে শুধুমাত্র বিয়ের জন্য ধর্ম পরিবর্তন কোনও মতেই গ্রহণযোগ্য নয়। এরপরই লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে মুখর বিজেপি। তবে কেন্দ্রীয় শাসক দলের যুক্তি ও উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বহু কংগ্রেস নেতা।

রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রবীণ কংগ্রেস নেতা অশোক গহলৌত বলেছিলেন, “দেশে সাম্প্রদায়িক সদ্ভাব নষ্ট করতে এবং দেশের মধ্যে বিভাজন আনতে ‘লাভ জেহাদ’ শব্দের আমদানি করেছে বিজেপি। ভালোবাসায় জিহাদের কোনো স্থান নেই। বিবাহ ব্যক্তি স্বাধীনতার বিষয়। এই বিষয়ে আইন আনা সম্পূর্ণ অসাংবিধানিক এবং এই আইন কোনও আদালতেই গ্রাহ্য হওয়ার কথা নয়।”

ধর্মীয় ভেদাভেদ ভুলে নিখিল জৈনের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন নুসরত। বিয়ের পর প্রথমবার সংসদে যাওয়ার সময় তাঁর মাথায় সিঁদুর এবং মঙ্গলসূত্রও পরতে দেখা যায়। শুধু তাই নয় রথযাত্রার সময় রশিতে টান দেন তিনি। যা নিয়ে কটাক্ষ শুনতে হয় তাঁকে। তারকা সাংসদের এ প্রসঙ্গে বক্তব্য, “আমি যখন মাজারে যাই তখন তা নিয়ে কারও কোনও মাথাব্যথা থাকে না। এমনকী কোনও সংবাদমাধ্যমেও তা প্রকাশিত কিংবা প্রচারিত হয় না। কিন্তু আমি যখন কোনও হিন্দুদের অনুষ্ঠানে অংশ নিই তখন তা নিয়ে আলোচনার শেষ নেই।”

সাংসদ-অভিনেত্রী বলেন, “আমি নুসরত। আমি বাঙালি মুসলমান পরিবারের মেয়ে। আমরা ধর্মনিরপেক্ষভাবে সকলকে ভালোবাসতে পারি। আর এটা কোনও ভুল নয়।”

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।