নয়াদিল্লি: অনেক ট্রোল এবং বিতর্ক পেরিয়ে আপাতত তিনি সাংসদ। বিয়ের জন্য দেরি হয়েছে শপথ নিতে। শপথ নেওয়ার পরই লোকসভায় নিজের কেন্দ্রের জন্য বিশেষ দাবি জানালেন নুসরত জাহান। বুধবার লোকসভায় প্রথমবার বক্তব্য রাখেন তিনি। আর সেখানে নিজের কেন্দ্রে একটি কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় তৈরির দাবি জানান অভিনেত্রী তথা সাংসদ নুসরত।

এদিন তিনি জানান যে তাঁর কেন্দ্র অর্থাৎ বসিরহাটে কোনও কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় নেই। আর এই এলাকায় বেশির ভাগ মানুষেরই বেসরকারি স্কুলে পড়ানোর মত সামর্থ্য নেই। তাই এলাকার মানুষের কথা ভেবে এই দাবি তুলেছেন বলে জানান নুসরত। তাঁর মতে এটা এখানকার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি। কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় এর শিক্ষার মান যে যথেষ্ট ভালো সেকথাও উল্লেখ করেন তিনি। বসিরহাট বাংলাদেশের সীমান্ত ঘেঁষা এলাকা।

তাই এখানে ২৪ ঘণ্টা নজরদারি চালায় কেন্দ্রীয় বাহিনী। এদিন সেকথাও উল্লেখ করেন বসিরহাটের নয়া সাংসদ। পাশাপশি তিনি জানান যে এই কেন্দ্রে বহু এক্স সার্ভিস ম্যান ও তাদের পরিবার বসবাস করে। পরিসংখ্যান দিয়ে নুসরত বলেন, তাঁর কেন্দ্রে ৮৬.৮১ শতাংশ মানুষ গরিব ও পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর এর ১৩.১৯ শতাংশ মানুষ শহুরে। এছাড়া এস সি ২৫.৩৪ শতাংশ ও এসটি ৬.৫৬ শতাংশ। দ্রুত যাতে কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় তৈরির ব্যবস্থা করা হয়, সেই দাবিতেই এদিন বারবার জোর দেন নুসরত।

বসিরহাট থেকে তিন লক্ষে র বেশি ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন নুসরত। সম্প্রতি তুরস্কে গিয়ে কলকাতার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী নিখিল জৈন কে বিয়ে করেছেন তিনি। সেখান থেকে ফিরে মঙ্গলবার শপথ নেন নুসরত। সঙ্গে ছিলেন আর এক অভিনেত্রী- সাংসদ মিমিও। মাথা ভরতি সিঁদুর ও হাতে চুড়া নিয়ে নুসরতের শপথ দৃষ্টি আকর্ষণ করে। এরপর বুধবার ই নিজের কেন্দ্রের জন্য লোকসভায় বক্তব্য রাখেন নুসরত।