ওয়াশিংটনঃ  কাশ্মীর ইস্যুতে উত্তপ্ত ভারত-পাকিস্তান। কাশ্মীরের উপর স্পেশাল স্ট্যাটাস তুলে নেওয়ার পর থেকেই ঘুম ছুটেছে ইসলামাবাদের। কখনও চিন তো কখনও রাষ্ট্রসংঘের দরজায় হন্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ইমরান খান। যদিও কোনও জায়গা থেকেই কিছু আদায় করতে পারছে না সে দেশের সরকার। এই অবস্থায় বারবার যুদ্ধের হুমকি দিচ্ছেন ইমরান খান। শুধু তিনিই নয়, কাশ্মীর নিয়ে এতটাই চিন্তিত যে পাকসেনাকেও তৈরি থাকতে নির্দেশ দিয়েছে সে দেশের প্রতিরক্ষা দফতর। যদিও তা কানে তুলতে নারাজ ভারত। যদিও গত কয়েক বছর আগে এই মার্কিন রিপোর্ট উদ্বেগ বাড়াচ্ছে।

বছর খানেক আগে আমেরিকার একটি রিপোর্ট জানাচ্ছে,পরমাণু অস্ত্রশস্ত্রের জেরে ভারতের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান যেকোনও সময় পরমাণু যুদ্ধ বাঁধিয়ে ফেলতে পারে৷ আটলান্টিক কাউন্সিলের এশিয়া ইন দ্য সেকেন্ড নিউক্লিয়ার এজে এই রিপোর্টটি প্রকাশিত হয়ে ছিল৷ সেই রিপোর্টে বলা হয়েছিল যে, পাকিস্তানে যে পরমাণু অস্ত্রশস্ত্রের পরীক্ষা নিরীক্ষা চলছে তা শুধু দেশের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করবে না৷ সেই সঙ্গে এটি পাকিস্তানের পরমাণু যুদ্ধের পথকে প্রশস্ত করছে অনেকাংশে৷

রিপোর্ট অনুযায়ী, এই ধরণের পরমাণু পরীক্ষা পাকিস্তানকে নানা ক্ষেত্রে সমস্যার সম্মুখীন করতে পারে৷ পাকিস্তানের বিভিন্ন রাজ্য এবং নাগরিক সমাজ আজ জঙ্গি হামলার নিশানা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ বিশেষ করে সামরিক ঘাঁটি৷ যেখানে পরমাণু অস্ত্রশস্ত্র রাখা হয়৷ সেখানেই জঙ্গিরা হামলা চালায়৷ এই ধরণের সংবেদনশীল ঘটনায় ঘটনাস্থলের ভিতরকার লোকই যে জড়িত থাকে কিছু কিছু ক্ষেত্রে সেটি নিশ্চিতাকারে বলাই যায়৷ এই হামলার ফলেই এই সমস্ত সামরিক ঘাঁটি থেকে পরমাণু অস্ত্রশস্ত্রগুলি জঙ্গিদের হাতে চলে যাওয়ার প্রবল সম্ভাবনা থেকে যায়৷ যার জেরেই পাকিস্তানের নিরাপত্তা কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে পরে৷ রিপোর্ট অনুযায়ী, এই পারমাণবিক অস্ত্রশস্ত্রগুলি যা আধুনিকীকরন করা হয়, যেমন, নতুন এবং উন্নত ডিজাইনের সাথে পুরানো সিস্টেমের প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে৷

উল্লেখ্য, কাশ্মীর ইস্যুতে যখন উত্তপ্ত পরিস্থিতি দুদেশের মধ্যে সেই সময় পরমাণু অস্ত্র নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং সাফ জানান, পরিস্থিতি বিচার করে প্রয়োজন হলে ভারত পরমাণু অস্ত্র পলিসিতে বদল আনতে পারে৷ আর প্রতিরক্ষামন্ত্রীর এই বক্তব্যের পরই পাক বিদেশমন্ত্রী এবং পাক প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের প্রতিক্রিয়া সামনে এসেছে৷ পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নেহরুর ভারতকে শেষ করে দিয়েছেন৷ ভারতের নীতি ডোভালে সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভরশীল৷

এর পাশাপাশি পাক সেনার মেজর জেনারেল আসিফ গফুর জানান, যেভাবে ভারত অগ্রসর হচ্ছে তাতে পাকিস্তানকেও বিকল্প পথকে অবহেলা করলে চলবে না৷ তিনি বলেন, কাশ্মীর একটি নিউক্লিয়ার পয়েন্ট৷ এবং ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পরমাণু অস্ত্র সম্পর্কিত বক্তব্যে বিশ্বেরও নজর দেওয়া উচিত৷ এই অবস্থায় বছরখানেক আগে দেওয়া পরমাণু সংক্রান্ত রিপোর্ট যথেষ্ট ভাবাচ্ছে পরমাণু বিশেষজ্ঞদের। যদিও বিষয়টি ভাবতে নারাজ ভারতীয় আধিকারিকরা।