নয়াদিল্লি: রাফায়েল যুদ্ধ বিমান নিয়ে বিতর্ক এখনও মেটেনি, তবে ধামাচাপা পড়েছে কিছুটা৷ সেই রেশ ধরে আবারও জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পর্যায়ের বৈঠকে বসতে চলেছে ভারত-ফ্রান্স৷ ইতিমধ্যেই ফ্রান্সের থেকে ভারতীয় নৌবাহিনী ও উপকূলরক্ষী বাহিনীর জন্য হেলিকপ্টার, সাবমেরিন কেনার চুক্তি হয়েছে৷

এরই সাথে নতুন একটি সম্ভাবনাও মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে৷ ভারতকে আরও ৩৬টি রাফায়েল যুদ্ধবিমান বিক্রির পথে হাঁটতে চলেছে ফ্রান্স৷ জানা গিয়েছিল ফ্রান্সের থেকে ৩,০০০-এরও বেশি মিলান 2T অ্যান্টি ট্যাংক গাইডেড মিসাইল কিনতে চলেছে ভারতীয় সেনা৷ প্রায় ১,০০০ কোটি টাকার চুক্তি হয়েছে দুই দেশের মধ্যে। আর তার ভিত্তিতেই এই মিসাইল আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে৷

আরও পড়ুন : কাশ্মীরে ৫০ হাজার চাকরির বন্দোবস্ত করতে চলেছে মোদী সরকার

সূত্রের খবর ভারতীয় সেনার প্রায় ৭০,০০০ অ্যান্টি ট্যাংক গাইডেড মিসাইল (ATGM) প্রয়োজন এবং বিভিন্ন ধরণের ৮৫০ লঞ্চার প্রয়োজন এবং সেই সঙ্গে থার্ড জেনারেশন ATGM কেনার পরিকল্পনায় রয়েছে ভারতীয় সেনা৷ সেই সূত্রেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাম্প্রতিক ফ্রান্স সফরে উঠে এসেছিল অত্যাধুনিক যুদ্ধাস্ত্র ও বিমান কেনার প্রসঙ্গ৷ এই প্রসঙ্গে ফ্রান্সের সহযোগিতার কথা জানিয়েছিলেন ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁ৷

যুদ্ধাস্ত্র কেনার ব্যাপারে চূড়ান্ত কথা বলতে বৃহস্পতিবার ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁর কূটনৈতিক উপদেষ্টা ইমানুয়েল বঁন৷ উল্লেখ্য, আগামী সেপ্টেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে ফ্রান্স সফরে যেতে পারেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং৷ সেই সফরেও নতুন করে ৩৬টি রাফায়েল বিমান কেনার কথা উঠতে পারে৷ এদিকে, প্রথম পর্বের রাফায়েল বিমান ভারতে আসছে সেপ্টেম্বর মাসের তৃতীয় সপ্তাহে৷ ভারতীয় বায়ু সেনার পাইলটরা পরের কয়েক মাসে ফ্রান্সে রাফায়েল বিমান উড়ান সংক্রান্ত প্রশিক্ষণে যাবেন বলেও খবর৷

এদিকে, রাফায়েল ছাড়াও ফ্রান্স থেকে ভারত পাচ্ছে উপকূলরক্ষী বাহিনীর জন্য ১৬ থেকে ১৮টি হেলিকপ্টার৷ নৌবাহিনীর হাতে আসছে প্যান্থার শ্রেণীর কপ্টার৷ অন্যদিকে, রাফায়েল বিমানে রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে অ্যাডভান্সড ক্ষেপণাস্ত্র মেটেওর (METEOR)। এই ক্ষেপণাস্ত্র চিন কিংবা এশিয়ার অন্য কোনও দেশের হাতে নেই। মেটেওর ১০০ কিমিরও বেশি দূরত্বে শত্রুপক্ষের বিমান ও ক্রুজ ক্ষেপনাস্ত্র ধ্বংস করে দিতে সক্ষম।

আরও পড়ুন : ভারতকে হুঁশিয়ারির মাঝেই মিসাইল টেস্ট পাকিস্তানের, বন্ধ আকাশপথ

এই ক্ষেপণাস্ত্রসম্ভার ভারতের হাতে এলে দক্ষিণ এশিয়ার ভোলই বদলে যেতে পারে। কারণ, দক্ষিণ এশিয়ায় চিন বা পাকিস্তান-কারও হাতে নেই ক্ষেপণাস্ত্র। মেটেওরের সমপর্যায়ের ক্ষেপণাস্ত্র হল এআইএম-১২০ডি। যা আমেরিকার আকাশ থেকে আকাশ ক্ষেপণাস্ত্রের সাম্প্রতিক সংস্করণ। ১০০ কিমির বেশি দূরত্বে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারে এই মিসাইল।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রামজেট ইঞ্জিনের জন্য মেটেওর আরও বিধ্বংসী। এই ইঞ্জিনের কারণে মেটেওর আকাশে আরও বেশি দ্রুত গতিতে চলতে পারে। জানা গিয়েছে, দৃশ্যসীমার বাইরেও এই ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা প্রায় ১৫০ কিলোমিটার। মেটেওর ছাড়াও রাফায়েলে রয়েছে দূরপাল্লার আকাশ থেকে মাটিতে আঘাত আনতে পারে এমন ক্রুজ মিসাইল ও আকাশ থেকে আকাশে আঘাত হানতে পারে এমন মাইকা (MICA) ক্ষেপণাস্ত্র।