শ্রীনগর: পুলওয়ামার ভয়ঙ্কর স্মৃতি আজও দগদগে সমগ্র দেশবাসীর মনে। সেই রোমহর্ষক দৃশ্য প্রায়শই ভেসে আসে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের স্মৃতিতে। যদিও এনিয়ে তাঁকে কম বিতর্কের মুখে পড়তে হয়নি। সেবার পুলওয়ামার জঙ্গি হামলার আগে হামলা সংক্রান্ত তথ্য ভারতীয় গোয়েন্দাদের কাছে ছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল।

কিন্তু সেই তথ্যে তেমনভাবে গা দেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ ওঠে। হামলার হুমকির মধ্যেই সেনাদের স্থানান্তরিত করা হচ্ছিল। তখনই ভারতীয় সেনার কনভয়কে নিশানা করে জইশ-ই-মহম্মদের জঙ্গিরা।

ভয়ঙ্কর সেই আত্মঘাতি হামলায় প্রাণ যায় ৪০ জন সিআরপিএফ জওয়ানের। তারপর বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইক করে উপযুক্ত জবাব দিলেও, এইবার আগে থেকেই সতর্ক হতে চাইছে ভারত। রবিবার আগাম হামলার খবর পেয়ে তাই তড়িঘড়ি বৈঠকে বসলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। রবিবার কাউন্টার টেরোরিজম গ্রিড বা সন্ত্রাসবাদ বিরোধী বাহিনীর অফিসারদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন তিনি। কাশ্মীর উপত্যকায় আগাম হামলার খবর পেয়ে জম্মু-কাশ্মীরে বৈঠক করলেন তিনি।

পাকিস্তানি জঙ্গিরা জম্মু-কাশ্মীরে বড় সড় হামলার ছক কষেছে। কেন্দ্রীয় সরকারের একটি বিশ্বাসযোগ্য সূত্রে খবর পেয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে উপত্যকায় বাড়তি ১০০ কোম্পানি আধাসামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। সম্প্রতি, দুইদিনের সফরে কাশ্মীরে গিয়েছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। তখনই এই খবর পান তিনি। তাই তড়িঘড়ি আগাম প্রস্তুতি নিতে কাউন্টার টেরোরিজম গ্রিড বা সন্ত্রাসবাদ বিরোধী বাহিনীর অফিসারদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন তিনি। সেখানেই পাকিস্তানি জঙ্গিদের আরও এক হামলার গোয়েন্দা তথ্য দেওয়া হয় ডোভালকে। এরপরই দিল্লি ফিরে এসে বাড়তি নিরাপত্তার সুপারিশ করেন তিনি। গত শনিবারই কাশ্মীর উপত্যকায় ১০,০০০ আধা সামরিক সেনা মোতায়েন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে।

জঙ্গিবাদ দমন এবং উপত্যকায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য সেনা মোতায়েনের খবর ছড়িয়ে পড়ার পর উপত্যকার লোকেরা মনে করছেন, আর্টিকেল ৩৫ অনুযায়ী সেনা মোতায়েন করা হচ্ছে। যাতে রাষ্ট্রের বিষয়টিকে বিশেষ অবস্থা দেওয়া হয়। তবে জম্মু-কাশ্মীরে সন্দেহভাজন সন্ত্রাসী হামলার খবর প্রকাশিত হওয়ায় ওই জায়গার বর্তমান পরিস্থিতি বিপদসঙ্কুল বলেই মনে হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত তিন দিনে শ্রীনগর বিমানবন্দরে সিএপিএফ (কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী) বহনকারী বিশেষ বিমানগুলি অবতরণ করেছে নিয়মমত। এই বাহিনী বহনকারী অতিরিক্ত সংস্থাগুলি জম্মু-শ্রীনগর জাতীয় মহাসড়ক হয়ে উপত্যকায় পৌঁছে যাচ্ছেন। বর্তমানে উপত্যকায় চলতি অমরনাথ যাত্রা এবং অন্যান্য সুরক্ষা সম্পর্কিত দায়িত্বের জন্য ৪৫০ কোম্পানি সিএপিএফ বা ৪০,০০০ সেনা মোতায়েন রয়েছে।