কলকাতা: পাল্টে যাচ্ছে প্রতিবাদের ভাষা৷ ফের রাজপথে নামবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সংশোধনী নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি বিরোধী প্রতিবাদ হবে অভিনব কায়দায়৷ মমতার নেতৃত্বে রং-তুলি নিয়ে ওই প্রতিবাদে শামিল হবেন ৫০জন শিল্পী৷ আগামী ২৮ জানুয়ারি কলকাতার মেয়ো রোডে গান্ধি মূর্তির পাদদেশে সরব হবেন মমতা৷

এতদিন মিছিল, জনসভা ও গানে কবিতায় প্রতিবাদ হয়েছে৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই সংশোধনী নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি বিরোধী কবিতা ও গান লিখেছেন৷ তাঁর লেখা ‘অধিকার’ নামের এনআরসি বিরোধী গানে সুর দিয়েছেন ইন্দ্রনীল সেন৷ প্রতিবাদ জানিয়েছেন ছবি এঁকেও৷ তবে এবার তিনি একা নন, তাঁর সঙ্গে রং-তুলি নিয়ে থাকবেন ৫০জন শিল্পী৷ এমনটাই সূত্রের খবর৷

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং এনআরসি নিয়ে আন্দোলন করছেন অনেক আগে থেকেই। ইতিমধ্যেই সেই আন্দোলনের সমর্থনে কলম ধরেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ কবিতা লিখে তিনি নিজের ফেসবুকে পোস্টও করেছেন।মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নতুন ওই কবিতার নাম ‘অধিকার’। দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে অবিশ্বাস প্রকাশই এই কবিতার বিষয়বস্তু। তিনি লিখেছেন, ‘আমি তো এই দেশটাকে চিনি না। আমি তো এইখানে জন্মাইনি।

এনআরসি ও সিএএ-এর প্রতিবাদে প্রায় প্রতিদিনই জনসভা করছেন তৃণমূল নেত্রী। প্রচার চালাচ্ছে তাঁর দল তৃণমূল কংগ্রেসও। রাজনৈতির মঞ্চ থেকে গর্জে ওঠার পাশাপাশি ট্যুইটার ও ফেসবুকের মত মিডিয়াতেও সিএএ ও এনআরসি-র বিরোধিতা করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তবে ১৩ জানুয়ারি দিল্লিতে নাগরিক আইন নিয়ে বিরোধী দলগুলির বৈঠকে উপস্থিত না থাকায় তৃণমূল সুপ্রিমো প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েছেন৷ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র বলেন, “দেশের বিশ্ববিদ্যালয় গুলিতে পুলিশের হামলা এবং নাগরিকত্ব (সংশোধনী) আইনের বিরুদ্ধে সংগঠিত আন্দোলনের প্রেক্ষিতে কংগ্রেস সভানেত্রী শ্রীমতি সোনিয়া গান্ধীর ডাকা বিরোধী দলগুলির সভায় ১৩ই জানুয়ারী, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যে উপস্থিত থাকবেন না সেটা আমরা আগেই থেকেই জানতাম।”