স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: উদ্বেগের মেঘ কাটছে৷ ধীরে ধীরে শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে চিকিৎসক পরিবহ মুখোপাধ্যায়ের৷ ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস কর্তৃপক্ষের তরফে এমনই তথ্য জানানো হয়েছে৷

সোমবার রাতে নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগীমৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে সেখানকার জুনিয়র চিকিৎসকদের উপরে নিগ্রহের ঘটনার সময় গুরুতর জখম হন পরিবহ মুখোপাধ্যায়। তাঁর কপালের ডান দিকে পাথরের ঘায়ে বড়সড় ক্ষতের সৃষ্টি হয়। সে রাতেই পরিবহকে ভরতি করা হয় মল্লিকবাজারের ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস-এ। চিকিৎসকেরা জানান, পরিবহর মাথার সিটি স্ক্যান থেকে দেখা গিয়েছে, প্রচণ্ড জোরে আঘাত লাগায় তাঁর কপালের উপরে করোটির সামনের একটা অংশ তুবড়ে ভিতরে ঢুকে গিয়েছে। চিকিৎসা পরিভাষায় এ ধরনের চোটকে ‘কমপাউন্ড ডিপ্রেস্ড ফ্র্যাকচার অব স্কাল’ বলা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে পরিবহর অস্ত্রোপচার করা হয়। তাঁকে আইটিইউ-তে রাখা হয়।

শনিবার রাতে এনআরএসে আন্দোলনরত চিকিৎসকেরাও সাংবাদিক বৈঠক করে দাবি করেন, ‘‘পরিবহ হয়তো আর কখনও সার্জন হতে পারবেন না। সে ক্ষেত্রে এক জন সম্ভাবনাময় চিকিৎসককে হারাবে সমাজ। আর কখনও সাঁতার কাটতেও পারবেন না পরিবহ।’’ আন্দোলনকারীদের আরও দাবি, ‘‘পরিবহের শর্ট টার্ম মেমরি লস হচ্ছে।’’ এমনকি চিকিৎসকরা দাবি করেন, পরিবহ দৃষ্টিশক্তিও হারাচ্ছেন।

তবে ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, তেমন কোনও ঝুঁকি তাঁরা দেখছেন না। সেখানকার মেডিক্যাল সুপার প্রসেনজিৎ বর্ধন রায় জানিয়েছেন, পরিবহ ভালই রয়েছেন। স্বাভাবিক ভাবে কথা বলছেন। সাঁতার কাটতে বা সার্জন হতে তাঁর সমস্যা হওয়ার কথা নয়। দৃষ্টিসমস্যার ব্যাপারে তিনি বলেন, রুগি বলছে তাঁর দেখতে একটু সমস্যা হচ্ছে৷ তবে চক্ষু চিকিৎসকরা তাঁকে জানিয়েছেন ভয়ের কিছু নেই৷

পরিবহ নিজেও অনেক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন তিনি ভাল আছেন৷ তবে তাদের সযত্নে এড়িয়ে চলছেন তিনি৷