ফাইল ছবি

বেঙ্গালুরু: মুখে মৃদু হাসি নিয়ে বৃহস্পতিবার বায়ুসেনার তেজস যুদ্ধবিমানে উড়লেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। তিনি প্রথম প্রতিরক্ষামন্ত্রী যিনি দুই সিটের হালকা ওজনের যুদ্ধবিমানের ব্যাকসিটে বসে আকাশে উড়লেন। তিনি বলেন দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলি তেজাস কিনতে আগ্রহী যেহেতু এটি হালকা এবং সাধারণভাবে তৈরি।

নিজের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “তেজসে ওড়া একটি অসাধারণ অভিজ্ঞতা ছিল। তেজসের ফলে ভারতের আকাশপথে প্রতিরক্ষা আরও শক্তিশালী হবে। অভিজ্ঞতা এককথায় রোমাঞ্চকর।”

তিনি হিন্দুস্তান এরোনটিকস লিমিটেড ও ডিআরডিওর এই যুগ্ম প্রচেষ্টার জন্য এই বিষয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তেজস নিয়ে আশাবাদী রাজনাথ জানিয়েছেন, “আমরা এখন যে পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছে সেখান পৃথিবীর যেকোন দেশকে যুদ্ধবিমান রফতানি করতে পারে ভারত।” তেজস ভারতের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করে তুলেছে। এদিন চালকের আসনে বায়ুসেনার এয়ার ভাইস মার্শাল নর্মদেশ্বর তিওয়ারী।

ব্যাঙ্গালুরুর ন্যাশানাল ফ্লাইট টেস্ট সেন্টার থেকে উড়ানের আগে বায়ুসেনার কর্মী ও বিমানচালকদের কাছ থেকে তেজসের বিষয়ে খুঁটিনাটি জেনে নিলেন রাজনাথ। তার পর বায়ুসেনার যুদ্ধবিমানে চড়ার বিশেষ পোশাক পরে এগিয়ে গেলেন তেজসের দিকে। প্রায় ৩০ মিনিট ধরে প্রচন্ড বেগে আকাশপথে উড়লেন রাজনাথ।

এই প্রথম কোনও প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বায়ুসেনার তেজস বিমানে উড়লেন। উড়ানের পর উচ্ছসিত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী। টুইট করে তিনি জানান, তেজসে ওড়া একটি অসাধারণ অভিজ্ঞতা ছিল। তেজসের ফলে ভারতের আকাশপথে প্রতিরক্ষা আরও শক্তিশালী হবে। বায়ুসেনার মিগ-২১ যুদ্ধবিমানের বদলে ব্যবহার করা হবে এই বিমান। উচ্চগতিতে ওড়ার ক্ষমতা ও হালকা ওজনের তেজসে রয়েছে একটি ইঞ্জিন। বায়ুসেনার ৮৩টি তেজসের মধ্যে ১০টি দুই সিটের। বায়ুসেনা সূত্রে খবর, এগুলি বিমানচালকদের প্রশিক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হবে।