প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: তৃণমূল কংগ্রেস বারাকপুরে ভেন্টিলেশনে চলে গিয়েছে। আমার লড়াই বিজেপির সঙ্গে। কেন্দ্রীয় সরকার পরিবর্তন করতে পারে একমাত্র জাতীয় কংগ্রেস দল। এমনটাই দাবি করলেন বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী মহম্মদ আলম৷

ভোটের দিন যত এগোচ্ছে ততই রাজনৈতিক দলগুলির প্রার্থীরা নিত্য নতুন প্রচারের পন্থায় মেতে উঠেছেন৷ উত্তর ২৪ পরগণার বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রটি এবার নজর কাড়া কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত। ভোটের প্রচারে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে কেউ কাউকে এক ইঞ্চি জমিও ছেড়ে দিতে রাজি নয়। এবার এই কেন্দ্রে চতুর্মুখী লড়াই হতে চলেছে।

এই কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদী, বিজেপির টিকিট পেয়েছেন অর্জুন সিং, কংগ্রেসের হয়ে লড়ছেন মহম্মদ আলম ও সিপিএম প্রার্থী গার্গী চট্টোপাধ্যায়৷ জাতীয় কংগ্রেসের দলীয় সমর্থকদের নিয়ে লোকাল ট্রেনে প্রচার করতে দেখা গেল কংগ্রেস প্রার্থী মহম্মদ আলমকে৷

বারাকপুর রেল স্টেশনে অন্য যাত্রীদের সঙ্গে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কেটে শিয়ালদহ নৈহাটি লোকালে ওঠেন কংগ্রেস প্রার্থী মহম্মদ আলম। এরপর তিনি ট্রেনের কামড়ায় নিত্য যাত্রীদের সঙ্গে পরিচিত হন। সকলের সঙ্গে জনসংযোগ রক্ষা করেন। কখনও বারাকপুর রেল স্টেশনে আবার কখনও শ্যামনগর প্লাটফর্মে, ঘুরে ঘুরে হকারদের সঙ্গে কথা বলেন এবং জাতীয় কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে কংগ্রেসকে ভোট দিয়ে জেতানোর আবেদন জানান।

মহম্মদ আলম এদিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘মানুষ এবার পরিবর্তনের পক্ষে। কেন্দ্রে এবার কোন ভাবেই বিজেপি সরকার আসবে না। কেন্দ্রে জাতীয় কংগ্রেস এবার সরকার গঠন করবে। বারাকপুর শিল্পাঞ্চলের মানুষ বুদ্ধিমান। অন্য কোন দলকে ভোট দিয়ে সেই ভোট নষ্ট করবে না। কেন্দ্রে বিজেপিকে সরিয়ে স্থায়ী সরকার গঠন করতে পারে একমাত্র জাতীয় কংগ্রেস দল।’’

তৃণমূল কংগ্রেসের প্রসঙ্গে কংগ্রেস প্রার্থী বলেন, ‘‘তৃণমূল কংগ্রেস এবার বারাকপুরে কোন ফ্যাক্টর নয়৷ তৃণমূল কংগ্রেস এবার ভেন্টিলেশনে চলে গিয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেসকে যে অক্সিজেন দিত, সেই চলে গিয়েছে বিজেপিতে। আমার লড়াই বিজেপির সঙ্গে। আমাদের সরকার কেন্দ্রে আসবেই।’’

তিনি আরও বলেন, ‘‘আমি রাহুল গান্ধীকে বলেছি, বারাকপুরে তিনটি বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে হবে। প্রথম, দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রথম শহিদ মঙ্গল পাণ্ডের স্মৃতিতে বারাকপুরকে ঐতিহাসিক স্থান হিসেবে সাজিয়ে তুলতে চাই। দ্বিতীয়ত, দিল্লীর এই মাসের সমতুল্য একটি অত্যাধুনিক মেডিক্যাল কলেজ গড়তে চাই। তৃতীয়ত, কাঁচরাপাড়া কোচ ফ্যাক্টরি গড়তে চাই, সেখানে স্থানীয় যুবকদের চাকরির ব্যবস্থা হবে। মানুষ আমাকে আশীর্বাদ করলে রাহুল গান্ধীকে বলে আমি এই তিনটি কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার চেষ্টা করব।’’ রাজনৈতিক মহলের ধারণা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এই প্রার্থী বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের চতুর্মুখী লড়াইতে যথেষ্ট প্রভাব ফেলবে।