বেলগ্রেড: বিশ্বের পয়লা নম্বর টেনিস তারকা নোভাক জকোভিচ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন কয়েকদিন আগেই। এবার করোনার কবলে সার্বিয়ান তারকার কোচ তথা প্রাক্তন উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন গোরান ইভানিসেভিচ। শুক্রবার এক ইনস্টাগ্রাম পোস্টের মাধ্যমে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার কথা নিজেই জানালেন তিনি।

ইনস্টাগ্রাম পোস্টে প্রাক্তন ক্রোয়েশিয়ান টেনিস প্লেয়ার লিখেছেন, ‘আমার সংস্পর্শে সম্প্রতি যারা এসেছিলে তারা দয়া করে তাদের শরীরের প্রতি যত্নবান হও। আমি ইতিমধ্যেই নিজেকে সেলফ-আইসোলেশনে রেখেছি এবং আগামী দিনগুলোতেও রাখব।’ সবমিলিয়ে জকোভিচ পরিচালিত আদ্রিয়া ট্যুরের অংশ হিসেবে করোনা আক্রান্তের তালিকায় নবতম সংযোজন হলেন ইভানিসেভিচ। এর আগে গ্রিগর দিমিত্রভ, বোর্না করিচ, ভিক্টর ত্রোইস্কি এবং খোদ নোভাক জকোভিচ সম্প্রতি মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন চ্যারিটি টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে।

করোনা আবহে সার্বিয়ার বেলগ্রেড এবং ক্রোয়েশিয়ার জাদারে সম্প্রতি জকোভিচের চ্যারিটি টুর্নামেন্ট নিয়ে কম জলঘোলা হয়নি। এক এক করে টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করা প্লেয়াররা করোনা আক্রান্ত হওয়ায় ব্যাপক সমালোচনার পড়তে হয়েছে জোকারকে। আদ্রিয়া ট্যুর আয়োজনের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন খোদ অনুরাগীরা। টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করা প্লেয়াররা সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং উপেক্ষা করে পার্টিতে অংশগ্রহণ করায় তাঁদের প্রতি ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন অজি টেনিস তারকা নিক কিরগিওস।

যদিও এমন সময় প্রিয় ছাত্রের পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন ইভানিসেভিচ। নিউ ইয়র্ক টাইমসকে সম্প্রতি দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছিলেন, ‘এখন সবাই নিজেদের বুদ্ধিমান হিসেবে প্রতিপন্ন করছে এবং নোভাককে আক্রমণ করছে। কিন্তু নোভাক আসলে একটা মহৎ উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল। একটা মানবিক উদ্যোগ। আমরা তিনমাসের জন্য লকডাউনে ছিলাম। আর সেই লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাঁড়াতেই আদ্রিয়া ট্যুর আয়োজন হয়েছিল। আমন্ত্রিত প্লেয়ারদের উপস্থিতিতে অনুকূল পরিবেশেই ভালো টেনিসের সাক্ষী হয়েছিলাম আমরা। সার্বিয়া এবং ক্রোয়েশিয়া সরকারের সমস্তরকম গাইডলাইন মেনেই সবকিছু আয়োজিত হচ্ছিল।’

এরইমধ্যে বুলগেরিয়ান টেনিস তারকা গ্রিগর দিমিত্রভকেই করোনা সংক্রমণের বাহক হিসেবে চিহ্নিত করে দিনদু’য়েক আগে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসেন জকোভিচের বাবা। তিনি বলেন, ‘ও অসুস্থ অবস্থাতেই টুর্নামেন্ট খেলতে এসেছিল বলে মনে হয়।’ ক্রোয়েশিয়ার একটি টেলিভিশন চ্যানেলে এক সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেন, ‘টুর্নামেন্ট খেলতে এসে দিমিত্রভের শরীরে করোনা পরীক্ষা হয়নি। আগে যেখানে ওর পরীক্ষা হয়েছিলে সেটা ঠিকঠাক হয়নি। যা হয়েছে সেটার জন্য আমরা কেউ ভালো নেই। ক্রোয়েশিয়া এবং সার্বিয়াতে আমাদের মধ্যে ভাইরাস সংক্রামিত হয়েছে ওর জন্যই।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।