মেলবোর্ন: ‘অস্ট্রেলিয়ান ওপেন এবং নোভাক জকোভিচ, আ বেটার লাভ স্টোরি দ্যান টুইলাইট সাগা।’ কথাটা যে কতটা সত্যি রবিবাসরীয় রড লেভার এরিনায় সেটা আরও একবার প্রমাণ করলেন জকোভিচ নিজেই। রাশিয়ার দানিল মেদভেদকে স্ট্রেট সেটে উড়িয়ে নবমবারের জন্য অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে ঝুলিতে ভরলেন সার্বিয়ান তারকা। আর কেরিয়ারে মেজর জয়ের নিরিখে এই অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জয় সাবালক করল ‘জোকার’কে। অর্থাৎ, নবম অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতে কেরিয়ারের ১৮তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম পূর্ণ করলেন বিশ্বের পয়লা নম্বর।

প্রথম সেটে লড়াই ছুঁড়ে দিলেও দ্বিতীয় এবং তৃতীয় সেটে সার্বিয়ানের কাছে এদিন কার্যত আত্মসমর্পণ করেন চতুর্থ বাছাই রুশ তারকা। ফাইনালে জকোভিচের পক্ষে ম্যাচের ফল ৭-৫, ৬-২, ৬-২। মাত্র ১ ঘন্টা ৫৩ মিনিটেই এদিন ম্যাচের যবনিকা টানেন জকোভিচ। একইসঙ্গে রড লেভার এরিনায় খেতাব ধরে রেখে গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের নিরিখে রাফা এবং ফেডেক্সকে ছোঁয়ার দিকে আরেক ধাপ এগিয়ে যান তিনি। গতবছর ডমিনিক থিয়েমকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন সার্বিয়ান।

তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচ চলাকালীন তলপেটের যন্ত্রণায় কাতর নোভাক জকোভিচ জানিয়েছিলেন, ‘গ্র্যান্ড স্ল্যাম না হলে তিনি সরে দাঁড়াতেন।’ সেই জকোভিচ এদিন রড লেভার এরিনায় নবম খেতাব জিতে জানালেন, ‘আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই রড লেভার এরিনাকে। প্রত্যেক বছর তোমার প্রতি আমার অনেক অনেক করে ভালবাসা বাড়ছে। আমাদের এই ভালবাসার রসায়নটা বাড়তে থাকুক। ধন্যবাদ সকলকে।’ এখানেই শেষ নয়। প্রতিদ্বন্দ্বী মেদভেদেভকেও এদিন ম্যাচ শেষে প্রশংসায় ভরিয়ে দেন বিশ্বের এক নম্বর।

জকোভিচ বলেন, ‘কেরিয়ারে মুখোমুখি হওয়া অন্যতম কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বী মেদভেদেভ।’ একইসঙ্গে গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের জন্য রুশ তারকাকে আরেকটু ধৈর্য্য ধরতে বলেন ‘জোকার’। এর আগে ২০১৯ যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে রাফায়েল নাদালের কাছে হেরে তীরে এসে তরি ডুবেছিল মেদভেদেভের। তবে এদিন প্রথম সেটে ০-৩ পিছিয়ে পড়েও ৩-৩ সমতা ফিরিয়ে এনে প্রত্যাবর্তনটা ভালই করেছিলেন মেদভেদেভ। কিন্তু ৫-৫ অবস্থা থেকে অভিজ্ঞতায় বাজিমাত করে প্রথম সেট জিতে নেন জকোভিচ।

বাকি দু’টো সেটে মেদভেদেভ সম্পর্কে যত কম বলা যায় ততই ভাল। দ্বিতীয় সেটের প্রথম গেমে সার্ভিস খুঁইয়ে আগ্রাসী মেজাজে ধরা দেন জকোভিচ। আর ‘জোকারে’র আগ্রাসনের সামনে পিছু হটতে থাকেন রুশ প্রতিদ্বন্দ্বী। টানা চারটি গেম জিতে মেদভেদেভকে পিছনে ফেলে দেন তিনি। এরপর ৫-২ এগিয়ে থাকা অবস্থায় ম্যাচে মেদভেদেভের পঞ্চম সার্ভিস ব্রেক করে দ্বিতীয় সেট ঝুলিতে পুড়ে নেন জকোভিচ।

এরপর তৃতীয় সেটেও সার্ভিস খুঁইয়ে শুরু করেন মেদভেদেভ। আর শুরুতে সার্ভিস খোয়ানোর সঙ্গে সঙ্গে আত্মবিশ্বাসও খুঁইয়ে ফেলেন মেদভেদেভ। সারা ম্যাচে এদিন রুশ তারকার সাতটি সার্ভিস ব্রেক করেন সার্বিয়ান তারকা। সবমিলিয়ে একপেশে জয়েই কেরিয়ারের ১৮তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম দখলে নেন জকোভিচ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.