বেলগ্রেড: আশঙ্কা ছিলই, শেষ পর্যন্ত তা সত্যি হল! করোনায় আক্রান্ত হলেন নোভাক জকোভিচ৷ কোভিড-১৯ রিপোর্টে পজিটিভ পাওয়া গিয়েছে তাঁর স্ত্রী এলেনা রিস্টিচকেও৷ তবে ভালো খবর, তাঁদের সন্তানদের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে৷সম্প্রতি একটি প্রদর্শনী টুর্নামেন্ট আয়োজন করে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন তিনি। আর তারপরই আক্রান্ত হলেন জকোভিচ।

বেলগ্রেডে তাঁর প্রদর্শনী টুর্নামেন্ট খেলতে গিয়ে গত রবিবারই কোভিড-১৯’এ আক্রান্ত হওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন গ্রিগর দিমিত্রভ। বুলগেরিয়ান টেনিস তারকার পর সোমবার করোনা পজিটিভ হওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী ক্রোয়েশিয়ান টেনিস তারকা বোর্না করিচও। এরপরই আশঙ্কাটা তৈরি হয়েছিল। সেই আশঙ্কাকে সত্যি করে মঙ্গলবার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কথা ঘোষণা করলেন খোদ নোভাক জকোভিচ।

এক বিবৃতিতে জোকার জানিয়েছেন, তিনি এবং তাঁর স্ত্রী জেলেনা দু’জনেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ক্রোয়েশিয়ার জাদার থেকে বেলগ্রেড ফেরার পরেই তাঁদের শরীরে করোনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তবে তাদের দুই সন্তানের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে বলে জানিয়েছেন বিশ্বের পয়লা নম্বর।

এদিনের বিবৃতিতে জোকার বলেছেন, ‘আমি ভীষণভাবে দুঃখিত প্রত্যেকের জন্য। আশা রাখি কারও শারীরীক পরিস্থিতি জটিল পর্যায়ে পৌঁছবে না এবং খুব তাড়াতড়ি সকলে সুস্থ হয়ে উঠবে।’ সার্বিয়ান টেনিস তারকা আরও জানিয়েছেন, ‘আমরা যা করেছি সহৃদয়ে করেছি এবং আমাদের উদ্দেশ্য খুবই পরিষ্কার ছিল। আমাদের টুর্নামেন্ট মানুষকে ঐক্যবদ্ধ ও সংহতিপরায়ণ করার জন্য আয়োজিত হয়েছিল।’

উল্লেখ্য, সম্প্রতি দেশের রাজধানী শহর বেলগ্রেডে কোভিড১৯ উদ্বেগের মধ্যেই প্রদর্শনী টুর্নামেন্ট আয়োজন করে সমালোচনার মুখে পড়েন বিশ্বের পয়লা নম্বর নোভাক জকোভিচ। জোকারের প্রদর্শনী টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে গত রবিবার নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন বুলগেরিয়ার টেনিস তারকা গ্রিগর দিমিত্রভ। সোমবার উদ্বেগ দ্বিগুণ করে করোনা আক্রান্ত হন টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী ক্রোয়েশিয়ার টেনিস তারকা বোর্না করিচও।

গত সপ্তাহে গ্রিগর দিমিত্রভ, আলেকজান্ডার জেরেভ, ডমিনিক থিয়েমদের মত প্রথম সারির টেনিস তারকাদের নিয়ে সার্বিয়ার রাজধানী শহর বেলগ্রেড শহরে ‘আদ্রিয়া ট্যুর’ নামে একটি প্রদর্শনী টেনিস টুর্নামেন্ট আয়োজন করেন সার্বিয়ান টেনিস মায়েস্ত্রো জকোভিচ। যার ফাইনাল অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ক্রোয়েশিয়ার জাদার শহরে। রবিবাসরীয় ফাইনালে জোকার এবং রুবলেভ মুখোমুখি হওয়ার কথা থাকলেও ফাইনালের আগেই করোনা আক্রান্ত হন বুলগেরিয়ান দিমিত্রভ। স্বাভাবিকভাবেই টুর্নামেন্ট স্থগিত হয়ে যায়।

সার্বিয়ায় লকডাউনে শিথিলতা জারি হয়েছে আগেই। তারপরেও সমস্ত সরকারি গাইডলাইন মেনেই প্রদর্শনী এই টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হলেও সোশ্যাল মিডিয়ায় জকোভিচের মুন্ডপাত শুরু হয়। কারণ টুর্নামেন্ট চলাকালীন সোশ্যাল ডিসট্যান্সিংকে অগ্রাহ্য করে জকোভিচের সঙ্গে পার্টি করতে দেখা যায় দিমিত্রভ, থিয়েম, করিচদের। রবিবার দিমিত্রভের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিও নিয়ে জকোভিচের সমালোচনায় মুখর হন অনুরাগীরা। পাশাপাশি আক্রান্তদের সংস্পর্শে থাকায় আশঙ্কা ছিল জকোভিচকে নিয়েও। সেই আশঙ্কাই সত্যি হল মঙ্গলবার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I