জয়পুর: ১৩ মে পাঞ্জাব ও রাজস্তানের রেলওয়ে স্টেশনগুলিতে হামলা চালান হবে হুমকি দিয়েছিল তারা। চিঠিতে এমন কথা জানিয়েই, ছিল পাক মদত পুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ হুমকি দিয়েছিল। এই চিঠির ভিত্তিতেই স্টেশনগুলিতে তল্লাশি চালায় রাজস্তান জিআরপি ও আরপিএফ। কিন্তু অভিযানে তেমন কিছুই মেলে নি। সংবাদ সংস্থা এএনআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানালেন যোধপুর জিআরপি সুপারইনটেনডেনট মমতা ভিস্নই।

তিনি জানান, “পাঞ্জাব ও রাজস্থানের রেল স্টেশনে হামলা করার হুমকি দিয়ে জইশ-ই-মহম্মদের চিঠি পাওয়ার পর, আমরা আর পি এফের সঙ্গে হাত মিলিয়ে যৌথ অভিযান চালাই স্টেশনগুলিতে সন্দেহজনক কোন সামগ্রী পাওয়ার আশঙ্কা করে। কিন্তু তেমন কোন উপাদান মেলে নি। “

জেহাদিদের মৃত্যুর প্রতিশোধ চেয়ে ১৩ মে হামলা চালাবে বলে হুমকি দেয় জইশ-ই-মহম্মদ। ফিরজেপুর ডিভিশনের রেলওয়ে ম্যানেজার বিবেক কুমারকে উদ্দেশ্য করে হিন্দি ভাষায় লেখা এই চিঠিতে তাঁরা জানায়, ফিরজেপুর, ফরিদকোট, বারনালা, অমৃতসর ও জলন্দর রেলওয়ে স্টেশনে হামলা চালাবে বলে প্রচ্ছন্ন হুমকি দেয় তাঁরা। বালাকোটে ভারতের অতর্কিত হামলায় তাঁদের যেসমস্ত জেহাদিরা মারা গেছে, তাঁদের মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতেই এই হামলার ছক কষেছে তাঁরা বলেও চিঠিতে উল্লেখ করেছে তাঁরা। বিবেক কুমারকে উদ্দেশ্য করে এই চিঠি দিয়েছে জইশ-ই-মহম্মদের এরিয়া কম্যান্ডার মনসুর আহমেদ।

এই চিঠি পেয়ে পাঞ্জাবের রেলওয়ে স্টেশনগুলিতে তল্লাশি অভিযান চালায় জিআরপি ও আরপিএফ। ট্রেনগুলিতেও অভিযান চালান হয়। কিন্তু মেলে নি তেমন কিছু। রাজস্তানের ষ্টেশন গুলিতেও মেলেনি কিছু। পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, হোয়াটস আপের মাধ্যমে একটি পরিস্কার সাদা কাগজে এই হুমকির বার্তা দিয়েছিল জইশ। তাঁরা এও জানিয়েছেন, এই হোয়াটস আপের নম্বরটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মনে করা হচ্ছে , কেউ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মজা করার চেষ্টাও করতে পারে।