নয়াদিল্লি: আচমকা একদিন রাত আটটায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, পরের দিন থেকে সব ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল। মোদীর জমানায় সেটাই বোধহয় সবথেকে চমকপ্রদ পদক্ষেপ ছিল। সেই নোটবন্দি নিয়ে পরবর্তীকালে বিতর্ক হয়েছে প্রচুর। এবার সেই প্রসঙ্গে সরাসরি উত্তর দিলেন মোদী।

মঙ্গলবার সংবাদসংস্থা এএনআই-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নরেন্দ্র মোদী দাবি করেন, ওই সিদ্ধান্ত কোনও ‘ঝটকা’ ছিল না। আগে থেকেই সতর্ক করে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছিল। বছর খানেক আগেই থেকেই তিনি জনগণকে সতর্ক করেছিলেন বলে মন্তব্য করেন মোদী।

এদিন তিনি বলেন, “আমরা এক বছর আগেই দেশের মানুষকে এই ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছিলাম। সাফ জানিয়েছিলাম, আপনাদের কাছে যদি কালো টাকা থেকে থাকে, তাহলে তা সেটা অবিলম্বে জমা করুন, জরিমানা দিন, আমরা আপনাকে সাহায্য করব।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কালো টাকার সেই মালিকরা ভেবেছিলেন মোদীও আর পাঁচজনের মতই, তাই তখন কেউই তেমন গুরুত্ব দেয়নি।

২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর নরেন্দ্র মোদীর ওই সিদ্ধান্তের ফলে রাতারাতি বাতিল হয়ে যায় ৫০০ টাকা ও ১,০০০ টাকার নোট। দেশের অর্থব্যবস্থা থেকে রাতারাতি উবে যায় মোট নগদের ৮০ শতাংশ। কোটি কোটি মানুষকে দিনের পর দিন ধরে দাঁড়াতে হয়েছিল এটিএমের লাইনে। এইভাবে মানুষকে অসুবিধায় ফেলে সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয় নরেন্দ্র মোদীকে।