স্টাফ রিপোর্টার, বারাসতঃ সেলিব্রিটিরা ভোট ক্যাচার না হয়ে মানুষের কথা শুনুক৷ মানুষের কথা বলুক৷ সোমবার বারাসতের বিশেষ আদালতে রাজনৈতিক মামলার হাজিরা দিতে এসে একথা বললেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়।

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে টলিউড থেকে নতুন মুখ এনে চমক দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ যাদবপুর এবং বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী যথাক্রমে অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী এবং নুসরত জাহান৷ ভোটের সময় অভিনেতা অভিনেত্রীদের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে পরে তাদের কাজ করতে দেওয়া হয়না৷ এমন অভিযোগ তুলে সাংবাদিকদের লকেট বলেন, ‘সেলিব্রিটিদের মুখটা ব্যবহার করে ভোটটা নেওয়া হয়। তারপর তাঁদের ঠুঁটো জগন্নাথ করে রাখা হয়। আর নিজেরা টাকা-পয়সা নয়ছয় করছেন৷ আমি চাই, এটা যেন না হয়৷ সেলিব্রিটিরা সোচ্চার হোন৷ তাঁরা মানুষের কথা বলুক৷’

আরও পড়ুন : ভারতীকে ‘নীল সাদা’ শুভেচ্ছায় ভরালেন দেব

এরপরই সাংবাদিকরা লকেট-কে প্রশ্ন করেন , তিনি নিজেও তো অভিনয়ের জগৎ থেকেই রাজনীতিতে পা রেখেছেন তাহলে দেব-মিমি-নুসরতের বেলায় অসুবিধে কিসের? উত্তরে বিজেপির মহিলা মোর্চার সভাপতি বলেন, যে কোন ফিল্ড থেকে রাজনীতিতে লোক আসতে পারেন, তাদের স্বাগত৷ কিন্তু আমি প্রায় চার বছর ধরে আন্দোলনের মধ্যে রয়েছি৷ পুরুলিয়া থেকে শ্যামবাজার মানুষের হয়ে লড়াই করার চেষ্টা করেছি৷ অন্যরাও এমনটাই করুক৷

লকেট আরও বলেন, ‘ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উন্নয়ন করতে পারেননি৷ তাই, ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করছেন৷ বসিরহাটের হিংসা ক্ষত ভোলাতে নুসরতের মতো প্রার্থী দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গিমিক দিচ্ছেন৷ বসিরহাটের মতো জায়গায় এমন একজন প্রার্থী দরকার ছিল, যিনি বসিরহাটকে হিংসামুক্ত করতে পারবেন। তেমন প্রার্থী তো দিলেন না৷ উলটে এমন একজন প্রার্থী দিলেন, যিনি রাজনীতিটাই জানেন না৷’

আরও পড়ুন : ‘ঢুকিয়ে দেব’ শব্দের ব্যবহার, মুখ্যমন্ত্রীর বেড়ে ওঠা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন লকেট

রামনবমী বা মহরম প্রসঙ্গে লকেট বলেন, ‘রামনবমী বা মহরমে অস্ত্র নিয়ে মিছিল করলে সন্ত্রাস হয় না৷ সন্ত্রাস হয় অন্য জায়গায়৷ মুখ্যমন্ত্রীর মুখে ‘প্রধানমন্ত্রীকে হ্যাঙারে ঢুকিয়ে দেব’ মন্তব্যের সমালোচনা করে লকেট এদিন বলেন, ‘ওনার দলের একজন বলেছিলেন, মেয়েদের ঘরে ছেলে ঢুকিয়ে দেব৷ মুখ্যমন্ত্রীর মুখেও সেই রকম কথা। উনি প্রধানমন্ত্রীকে ঢুকিয়ে দেব বলছেন৷ এটা আমাদের কাছে একটা লজ্জা৷’