কলকাতা: দলে একজন কোচের সঙ্গে দু-একজন ক্রিকেটারের মতের অমিল থাকতে পারে। কিন্তু তিনি যখন নিজেকে প্রমাণ করে জাতীয় দলে ফের কামব্যাক করেছিলেন তখন জেনেছিলেন বেশিরভাগ ক্রিকেটারের সঙ্গেই গ্রেগ চ্যাপেলের বনিবনার অভাব ছিল। এর থেকেই প্রমাণিত সমস্যাটা ক্রিকেটারদের নয়, গ্রেগ চ্যাপেল নিজেই ছিলেন সমস্যার মূলে। ক্রীড়া সাংবাদিক গৌতম ভট্টাচার্যের সঙ্গে আলোচনায় সম্প্রতি এমনটাই জানালেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

গত ৮ জুলাই জন্মদিনে গৌতম ভট্টাচার্যের ইউটিউব চ্যানেল জিবি কর্ণারে মহারাজের একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। সেখানে জাতীয় দলে বাদ পড়া, চ্যাপেল প্রসঙ্গ কিংবা জাতীয় দলে কামব্যাক নানা বিষয়ে কথা বলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। আর সেখানেই তাঁর বাদ পড়ার কারণ কেবল গ্রেগ চ্যাপেল নন বলেই জানিয়েছেন মহারাজ। একজন বিদেশি কোচের পক্ষে একার মদতে দলের অধিনায়ককে ছেঁটে ফেলা কোনওভাবেই সম্ভব নয় বলে মনে করেন সৌরভ। তাই বর্তমান বোর্ড প্রেসিডেন্টের কথায়, ‘উসকানিটা দিয়েছিলেন চ্যাপেল কিন্তু আমায় দল থেকে বাদ দেওয়ার পিছনে ছিল আরও অনেকে।’

স্বাভাবিকভাবেই তৎকালীন নির্বাচকমন্ডলী কিংবা বোর্ড প্রেসিডেন্টকেই মহারাজ নিশানা বানিয়েছেন সেটা বুঝতে খুব বড় ক্রিকেটবোদ্ধা হওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। অন্যায়ভাবে তাঁকে দল থেকে বাদ দেওয়ার পর দলে তিনি কামব্যাক করেছেন স্রেফ আত্মবিশ্বাসের জোরে, জানিয়েছেন সৌরভ। তাঁর কথায়, ‘আমি ভাগ্যবান যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১০ হাজার রান করার পর আমার সঙ্গে এমনটা ঘটেছিল। আমার সম্পূর্ণ বিশ্বাস ছিল নিজের প্রতি।’ এই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে আত্মবিশ্বাসের সুরে মহারাজ বলেন, ‘এখনও আমাকে যদি ৬ মাস প্র্যাকটিস করতে দেওয়া হয় আমি টেস্ট খেলতে পারব।’

দল থেকে তাঁর বাদ পড়া প্রসঙ্গে চ্যাপেলের ভূমিকা নিয়ে বলতে গিয়ে সৌরভ বলেন, ‘তুমি যখন একটা দল গঠন করার লক্ষ্যে থাকো তখন দলের ক্রিকেটার, সতীর্থ কিংবা কোচেদের সঙ্গে তোমার একটা পারিবারিক সম্পর্ক তৈরি হয়। কিন্তু সেই সম্পর্ক যখন পেশাদারিত্বের মোড়কে ঢুকে যায় তখনই সমস্যার সৃষ্টি হয়।’ সৌরভের কথায়, ‘চ্যাপেল আচমকাই আমার নামে বোর্ডে নালিশ পাঠায়, যেটা একেবারেই কাম্য ছিল না। আমার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ থাকলে সেটা সরাসরি আমাকে বলা উচিৎ ছিল। যখন আমি কামব্যাক করি, তখন চ্যাপেল আমাকে সেটা বলেছিল।’

এছাড়া জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া প্রসঙ্গে মহারাজ বলেন, ‘২০০৩ বিশ্বকাপে রানার্স হওয়ার পর ২০০৭ বিশ্বকাপে দেশকে চ্যাম্পিয়ন করব ভেবেছিলাম। আমার নেতৃত্বে দেশে এবং বিদেশের মাটিতে ভালোই ক্রিকেট খেলছিল দল। তখনই হঠাৎ করে আমাকে বাদ দেওয়া হল।’ ওয়ান-ডে দল থেকে ছেঁটে ফেলার কথা বলা হলেও পরে টেস্ট দল থেকেও ওরা আমায় বাদ দিয়েছিল, জানান বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ