ছবি সৌজন্যে ট্যুইটার

নয়াদিল্লি: যখন গোটা উত্তর-পূর্ব দিল্লি হিংসা আর অশান্তির আগুণে জ্বলছে , সেই তখনই কিন্তু রাম সেবক শর্মা মনে করছেন না তার বাড়ি ছেড়ে অন্য কোনো নিরাপদ স্থানে চলে যেতে।

তার বাড়িটি রয়েছে নয়া মুস্তাফাবাদ এলাকায়, যেটা মুসলিম অধ্যুষিত স্থান। ওই এলাকায় থাকলেও শর্মা একবারও মনে হচ্ছে না তার অথবা তার পরিবারের কোন ক্ষতি হতে পারে এখন সেখানে। গত ৩৫ বছর ধরে তিনি সেখানে থেকেছেন এলাকার মানুষের সঙ্গে সুখ-দুঃখ ভাগ করে নিয়েছেন। সেই পারস্পরিক বিশ্বাস ও শ্রদ্ধা আজ নষ্ট হবার নয়। সেটা এখনো আছে।

যেখানে গত তিন চারদিন ধরে সম্প্রতি নষ্ট হয়ে দিল্লির রাস্তায় হিংসার আগুনে জ্বলছে। যখন এক গোষ্ঠী অন্য গোষ্ঠীকে শিকারের মত পেয়ে আক্রমণ চালাচ্ছে তখন শর্মার প্রতিবেশীরা তাকে ও তার পরিবারকে নিশ্চয়তা দিয়েছে নিরাপত্তা বিষয়ে। মুসলমান অধ্যুষিত ওই এলাকায় দুই তিন ঘর হিন্দু পরিবার রয়েছে বলে সংবাদ সংস্থা এএনআই কে জানিয়েছেন রাম সেবক শর্মা।বর্তমান পরিস্থিতিতে রামরাম সেবক তার অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা কে। তিনি জানান প্রতিবেশি মুসলমান ভাইয়েরা তাকে আশ্বাস দিয়েছে নিশ্চিন্তে রাতে ঘুমোতে কারণ দরকারে তারাই ওই বাড়ি পাহারা দেবে।

এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তার কাছ থেকে জানতে চেয়েছিলেন কোনও নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতে চান কিনা ৷ তিনি জানিয়েছেন, এমন পরিস্তিতিতেও অন্যত্র যেতে চান না৷ তিনি জোরের সঙ্গে বলেছেন,‘‘ আমি মনে করি না আমাদের মধ্যে কোনও পরিবর্তন হয়েছে ৷ আমাদের মধ্যে কোনও অবিশ্বাস নেই৷’’

গত কয়েক দিনে অশান্ত দিল্লিতে ইতিমধ্যেই ৩৮জনের মৃত্যুর খবর এসেছে এবং দুশোর বেশি মানুষ আহত হয়েছেন৷