শেখর দুবে, কলকাতা: নিজের ছেলে ঔষ্ণীক বসু এবং আরও ৩০টি বাচ্চার স্কুল যাতায়াত সুরক্ষিত করতে সিঁথির রুমা ঘোষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন৷ ‘‘শ্লীলতাহানি শুনেছিস, এবার দেখবি’’ সুলভ হুমকিতে ভয় না পেয়ে এবার মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ হলেন রুমা এবং উত্তীয় বসু৷ পুরো বিষয়টি জানিয়ে লিখিতভাবে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ করেন রুমা দেবী৷ সোমবার কলকাতা ২৪x৭ রুমা বসুর খবরটি সামনে আনে৷

মুখ্যমন্ত্রীকে অভিযোগপত্র জমা দিয়ে বেরনোর পর রুমা বসু কলকাতা ২৪x৭-কে জানান, ‘‘৩০ জন বাচ্চার স্কুল যাতায়াতের সুরক্ষার বিষয় এবং সেটা নিয়ে প্রতিবাদ করাতে আমাকে দেওয়া হুমকির কথা আমরা মুখ্যমন্ত্রীকে লিখিতভাবে জানিয়েছি৷ আমাদের অভিযোগপত্রটি আইপিএস এস এস চক্রবর্তী গ্রহণ করেছেন এবং তাঁরই নিদের্শে আমরা বরানগর থানায় এসেছি৷ আমরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসনের উপর ভরসা রাখছি৷’’

কলকাতার সাউথ সিঁথির বিধান পার্কের একটি আবাসনের বাসিন্দা উত্তীয় এবং রুমা বসু৷ ছেলে ঔষ্ণীক বসু লিলুয়ার একটি নামী ইংরাজি মাধ্যম স্কুলের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র৷ ২০১৫ থেকে টানা দু’বছর ‘সরকার পুলকার অ্যান্ড ক্যাটেরিং সার্ভিসেস’এর অধীনস্থ একটি বাসে করে ঔষ্ণীক এবং আরও ৩০জন ছেলেমেয়ে স্কুলে যাতায়াত করত৷ ঔষ্ণীকের পরিবারের দাবি, ওই বাসটি পুরনো এবং বাতিল হয়ে যাওয়া বাস৷ যার কোনরকম রুট পারমিশন নেই৷ বিষয়টি জানতে পেরে সরকার পুলকারের মালিক অভিজিৎ সরকারকে বিষয়টি জানান এবং বাসটি পাল্টানোর কথা বলেন উত্তীয়৷ বাস মালিক প্রথমে বিষয়টি স্বীকারও করে নেয় বলে জানিয়েছেন বসু দম্পতি৷

বারবার অনুরোধ করেও কাজ না হওয়াতে তাঁরা ছেলে ঔষ্ণীককে ওই বাসে করে স্কুলে পাঠানো বন্ধ করে দেন৷ কিন্তু আরও ৩০ টি বাচ্চার ভবিষ্যতের কথা ভেবে পুরো বিষয়টি জানিয়ে এবছরেরই ২৭ জুন ব্যারাকপুর আরটিও-র কাছে লিখিত অভিযোগ করেন মিস্টার এবং মিসেস বসু৷ আরটিও-র পক্ষে ব্যবস্থাও নেওয়া হয় বলে রুমা বসুর দাবি৷ আরটিও-র পরামর্শে চলতি বছরের জুলাই মাসে স্কুল কর্তৃপক্ষ অভিজিৎ সরকারকে বাসটি পরিবর্তন করতে বলে৷ ১৫ দিন পর নতুন বাসও দেন সরকার পুলকারের মালিক৷ কিন্তু বসু দম্পতির অভিযোগ পুরনো বাসটিকেই (ডব্লিউ বি ২৩ এ ৩৬২০) নতুন রঙ করে এবং নম্বর প্লেট বদলে আবারও ছাত্রদের স্কুলে নিয়ে যাওয়া-আসার কাজে ব্যবহার শুরু করেছে অভিযুক্ত বাস মালিক৷

পড়ুন: ‘শ্লীলতাহানি শুনেছিস, এবার দেখবি’ গৃহবধূকে হুমকি স্কুলবাস মালিকের

ব্যারাকপুর আরটিও-র পর বর্ধমান আরটিওকে লিখিত অভিযোগ করেন বসু দম্পতি৷ ছাত্রের মা রুমা বসুর অভিযোগ, এরপরই শুরু হয় রাস্তায়-ঘাটে তাঁকে হুমকি দেওয়া৷ রুমা বসু কলকাতা ২৪x৭-কে বলেন, ‘‘ অভিজিৎ সরকার এবং তার সহযোগী জয়রাম সেবাশ্রমের কিছু ছেলে মিলে রাস্তাঘাটে আমাকে অ্যাসিড ছুঁড়ে মারার হুমকি দেয়৷ পাশাপাশি আমাকে ‘নাচনেওয়ালি, তোকে দেখে নেব’ বলেও ধমকি দেন৷’’ প্রসঙ্গত, রুমা বসু তনুশ্রীশঙ্কর ডান্স অ্যাকাডেমির একজন শিক্ষিকা৷

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর দিলীপ নারায়ণ বোসের দ্বারস্থ হন রুমা এবং তার স্বামী৷ রুমা দেবীর অভিযোগ কাউন্সিলরের সামনেই অভিজিৎ অ্যান্ড গ্যাং তাঁকে বলেন, ‘‘ শ্লীলতাহানি শুনেছিস, এবার দেখবি৷’’ নিজের ছেলে এবং আরও কয়েকটি বাচ্চার জন্য সুরক্ষিত স্কুল বাস চেয়ে কার্যত এখন ভয়ে ভয়ে দিন কাটাচ্ছেন রুমা বসু৷ ভয় পেলেও অবশ্য এই ঘটনার শেষ দেখার কথা বলছেন রুমা৷