ফাইল ছবি।

তিন শতাধিক ছেলেকে বলপূর্বক যৌন সম্পর্কে জড়াতে বাধ্য করার দায়ে ২৬ বছরের এক যুবককে অভিযুক্ত করেছে নরওয়ের পুলিশ৷ কর্তৃপক্ষ বলছে, স্ক্যান্ডিনেভিয়ার এই দেশটির ইতিহাসে যৌন নির্যাতনের সবচেয়ে বড় ঘটনা এটি৷ স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে অভিযুক্ত যুবককে ফুটবল রেফারি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ বলা হচ্ছে, বিভিন্ন ইন্টারনেট ফোরামও স্ন্যাপচ্যাট নামের ম্যাসেজিং অ্যাপ ব্যবহারকরে এই টিনএজারদের টার্গেট করা হত৷ নিজেকে মেয়ে হিসেবে পরিচয় দিতেন অভিযুক্ত যুবক৷ নিজের নগ্ন ছবি দেওয়ার কথা দিয়ে ছেলেদের কাছ থেকে নিতেন হস্তমৈথুনের ভিডিও৷

একবার ভিডিও পেয়ে গেলে তা দিয়ে ব্ল্যাকমেল করা হত ভিকটিমদের। শুধু তাই নয়, বাধ্য করা হত নতুন নতুন ভিডিও পাঠাতে৷ পুলিশ অভিযুক্তের কম্পিউটার থেকে ১৬ হাজারের বেশি এমন ভিডিও পেয়েছে৷ যা দেখে রীতিমত চোখ কপালে ওঠার মতো অবস্থা।

২০১১ সাল থেকে ১৩ থেকে ১৬ বছর বয়সি তিন শতাধিক ছেলেকেএভাবে নির্যাতন করেএসেছেন তিনি৷ নির্যাতন হওয়া এমন কারও কারও কাছ থেকে ধর্ষণের অভিযোগও পেয়েছে পুলিশ৷ নরওয়ে ছাড়াও ডেনমার্ক ও সুইডেনের টিনএজাররাও রয়েছেন নির্যাতিতের তালিকায়৷

সরকারি আইনজীবী গুরো হ্যানসন বুল এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘‘নরওয়ের ইতিহাসে যৌন নির্যাতনের সবচেয়ে বড় ঘটনা এটি৷ আমরা এই ঘটনাকে সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে দেখছি৷” অভিযুক্ত ঘটনা ‘স্বীকার করে নিয়েছেন’ বলে নরওয়ের এনআরকে টিভি চ্যানেলকে জানিয়েছেন তার আইনজীবী গানহিল্ড লায়রাম৷ ২০১৬ সাল থেকে অভিযুক্ত যুবককে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। আগামী বছর ২০১৯ সাল থেকে শুরু হতে পারে আদালতে মামলার কার্যক্রম৷