স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির হাত থেকে আপতত রেহাই পাচ্ছে না উত্তরবঙ্গের জেলাগুলি। আগামী বৃহস্পতিবারের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে পারে। এই ক’দিন টানা বৃষ্টির জেরে পার্বত্য এলাকায় ধসের আশঙ্কা রয়েছে। নদীর জল বিপদসীমার উপর দিয়ে বইতে পারে। তার ফলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। ইতিমধ্যেই রবিবার থেকে বিভিন্ন এলাকায় প্রবল বৃষ্টি শুরু হয়েছে। অন্য দিকে কলকাতা-সহ দক্ষিণের জেলাগুলিতে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বিক্ষিপ্ত ভাবে বৃষ্টি চলবে বলে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

১৫ জুলাই আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহার, দার্জিলিং, কালিম্পং ও জলপাইগুড়িতে ৭০ থেকে ১১০ মিলিমিটার ভারী বৃষ্টি হতে পারে। কমলা সতর্কতা জারি করে রাখা হয়েছে এদিনের জন্যেও। এদিকেএই বৃষ্টিতে স্বাভাবিকভাবেই জল বাড়বে নদীগুলিতেও। সে জন্য কৃষক এবং মৎস্যজীবিদের সাবধানতা অবলম্বনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। উত্তরবঙ্গ লাগোয়া বিহারের গত ২৪ ঘণ্টায় বাল্মিকিনগরে ১৫০, বৌদ্ধগড়ে ১৩০, ঝুম্পুরায় ১২০, কুচুন্দায় ১১০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। এদিকে হাওয়া অফিস আগেই জানিয়েছে মৌসুমি অক্ষরেখা দক্ষিণ পশ্চিমে সরে গিয়ে অবস্থান করছে ঝাড়খণ্ডের দুমকা ও ক্যানিং-এর উপর। এর ফলেই আগামী কয়েকদিনে বৃষ্টির পরিমান অল্প কমতে পারে উত্তরবঙ্গে। তবে একেবারেই যে তা কমে আসবে তা নয়। হিমালয় পাদদেশে মৌসুমী অক্ষরেখা সক্রিয় রয়েছে। তার ফলে বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয়বাষ্প ঢুকছে রাজ্যে। সে কারণে আগামী চার দিন শুধু পশ্চিমবঙ্গেই নয়, সিকিম, অসম, মেঘালয়, বিহার ও উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন জায়গা মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহারে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি চলবে ১৬ জুলাই পর্যন্ত। পূর্বাভাস মতোই চলছে উত্তরের আবহাওয়ার পরিস্থিতি।

গত কয়েকদিন ধরে টানা বৃষ্টি চলছে গোটা উত্তরবঙ্গ জুড়ে। পাহাড়ের বৃষ্টিতে জল বাড়তে শুরু করেছে তোর্সা-তিস্তায়। অসংক্ষিত এলাকায় বহু গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। জলের তলায় চলে গিয়েছে বিঘের পর বিঘে জমির ফসল। উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রামীণ মৌসম সেবাকেন্দ্রের প্রিন্সিপাল নোডাল অফিসার শুভেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “এই সময় খুব সাবধান এবং সচেতন থাকতে হবে। ফসল যেমন রক্ষা করতে হবে, তেমনই সুরক্ষিত রাখতে হবে নিজেদেরকেও।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ