স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : উত্তরবঙ্গে অতি ভারী বৃষ্টি চলবে আরও দিন তিনেক। এমনটাই জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। বৃষ্টির বেশি সম্ভাবনা ছিল দক্ষিণবঙ্গে। আবহাওয়ার তালেগোলে ফের উত্তরবঙ্গে শুরু হয়ে যায় বৃষ্টির ঝড়ো ব্যাটিং। গত তিন দিন ধরে সেই বৃষ্টি চলছে। সেই বৃষ্টি আরও দিন দুয়েক উত্তরবঙ্গকে বিপর্যস্ত করবে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস।

বৃহস্পতিবার রেকর্ড অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে কোচবিহারে ১১৬.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। দার্জিলিঙে ৩২.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। জলপাইগুড়িতে ১৩৬.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। শিলিগুড়িতে ৬০.৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। কালিম্পঙে ৩৭.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। শুধুমাত্র মালদহে বৃষ্টি হয়নি। এমন ভারী বৃষ্টি চলবে শনিবার পর্যন্ত। এর জেরে উত্তরবঙ্গের পার্বত্য এলাকায় ধস ও নিচু এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বুধবারের রেকর্ড কোচবিহারে ৯০.৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। দার্জিলিঙে ১০৪.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। জলপাইগুড়িতে ১৮০.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। মালদহে ৫৫.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। শিলিগুড়িতে ১৭৮.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। কালিম্পঙে ৪৯.০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়।

কেন এমন বৃষ্টি হচ্ছে উত্তরের জেলাগুলিতে? আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে, মহারাষ্ট্র থেকে সিকিম পর্যন্ত নিম্নচাপ অক্ষরেখা বিস্তৃত রয়েছে। উত্তরবঙ্গের উপর দিয়ে গিয়েছে এই নিম্নচাপ অক্ষরেখাটি। সঙ্গে রয়েছে একটি ঘূর্ণাবর্তও। আবার বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ পশ্চিমে সরে গিয়েছে আগেই। সেটির অবস্থান ছত্তিশগড়ের উপরে। মৌসুমী অক্ষরেখা এই নিম্নচাপের এলাকা দিয়ে যাওয়ায় তা আরও শক্তিশালী হয়েছে। এর প্রভাবে উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টি চলবে বলে মত আবহাওয়া বিজ্ঞানীদের। অতিবৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বেশ কিছু জেলায়। জারি রয়েছে সর্তকতাও। বেশি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহারে। দার্জিলিং, কালিম্পংয়েও ভারী বৃষ্টির সর্তকতা রয়েছে অর্থাৎ ৭০ থেকে ১১০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টি হতে পারে সেখানে। শুক্র ও শনিবারও বিক্ষিপ্তভাবে ভারী বৃষ্টি হতে পারে পাহাড়ের পাঁচ জেলা অর্থাৎ দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার ও জলপাইগুড়িতে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।