স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : এবছর স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দিল মৌসম ভবন। কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের তরফে সোমবার বলা হয় এবার বর্ষাকালে স্বাভাবিক পরিমাণে বৃষ্টি হবে। প্রত্যেকবার বর্ষাকাল শুরুর আগে এপ্রিল মাসে এবং বর্ষার মাঝামাঝি জুন মাসে লং রেঞ্জ ফোরকাস্ট দিয়ে থাকে মৌসম ভবন।

গত কয়েক বছরে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ মাঝেমধ্যেই হেরফের করেছে।ভারতীয় আবহাওয়ায় এলনিনোর প্রভাবও পড়েছে। শঙ্কার মেঘ কাটিয়েছে মৌসুম ভবন। জানানো হয়েছে, কৃষি প্রধান দেশ ভারতের ক্ষেত্রে বৃষ্টি পাতের পরিমাণ স্বাভাবিক হওয়া জরুরি।এবার ৯৬ থেকে ১০৪ শতাংশের মধ্যে বৃষ্টিপাত হবে, যা স্বাভাবিক।

এ বার বর্ষা স্বাভাবিকের ৯৬ শতাংশ হবে। অর্থাৎ স্বাভাবিক মাত্রার থেকে মাত্র চার শতাংশ কম হতে পারে বর্ষা। এখানে পাঁচ শতাংশ ‘মডেল এরর’ ধরা হয়েছে। অর্থাৎ, আবহাওয়া দফতরের মতে সর্বনিম্ন ৯১ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ১০১ শতাংশ পর্যন্ত বৃষ্টি হতে পারে এ বার ভারতে।এও জানানো হয়েছে, এ বার এল-নিনোর সম্ভাবনা থাকলেও, দেশে তার প্রভাব খুব একটা বেশি পড়বে না।

আবহাওয়া দফতরের বলে থাকে, ৯৬ শতাংশ থেকে ১০৪ শতাংশ পর্যন্ত বৃষ্টি হলে তাকে স্বাভাবিকই ধরা হয়। ৯০ থেকে ৯৬ শতাংশ পর্যন্ত হলে স্বাভাবিকের থেকে কম বৃষ্টি বলা হয়। যদি ৯০ শতাংশের কম বৃষ্টি হয়, তা হলে বলা হয় অপর্যাপ্ত। আর যদি ১০৪ শতাংশের বেশি হয়, তাকে বলা হয় বেশি বৃষ্টি।

বেসরকারি সংস্থা স্কাইমেটের পূর্বাভাসে আশঙ্কার মেঘ তৈরি হয়েছিল বর্ষায় বৃষ্টির পরিমাণ নিয়ে। যদিও তারা এল নিনো উপর বিষয়টি নির্ভর করছে বলে জানিয়েছিল।

প্রসঙ্গত ভারতীয় আবহাওয়ায় এলনিনো প্রভাব কত মারাত্মক হতে পারে তার প্রমাণ পেয়েছে চেন্নাই। বছর চারেক আগে চেন্নাইতে অসময়ে প্রবল বৃষ্টিপাত হয়। একটি হিসেব বলছে তার আগের ১০০ বছরে অত বৃষ্টি কখনওহয়নি। এটাও এলনিনোর জেরেই হয়েছিল বলে মনে করেন আবহাওয়াবিদরা।