ছবি: প্রতীকী

নয়াদিল্লি: জওহর লাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ছোট ছোট জামা কাপড় পরা যাবে না৷ খাওয়া যাবে না আমিষ বা মাছ মাংস৷ এমনই ফতোয়া জারি করল আরএসএসের ছাত্র সংগঠন এবিভিপি৷ এই ইস্যুতে পোস্টার পড়েছে জেএনইউ-র চত্বরে৷

জেএনইউ বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর যাতে দেশবিরোধী ‘কমরেড’দের হাত থেকে রক্ষা করা যায়, সেই উদ্দ্যেশেই এই পোস্টার বলে জানা গিয়েছে৷ এবিভিপি জানিয়েছে মহিলারা যদি ছোট জামা পড়ে ক্যাম্পাস চত্বরের ঘোরাফেরা করেন, তবে তাদের বিরুদ্ধে যথাযোগ্য ব্যবস্থা নেবে এবিভিপি৷

এবিভিপির সদস্য সৌরভ শর্মা বলেন বামপন্থী দলগুলির প্রভাবে ক্যাম্পাস চত্ত্বরে আমিষ খাওয়া চলছে৷ তবে দলের পক্ষ থেকে কোনও পোস্টার দেওয়া হয়নি৷ এগুলো এবিভিপিকে কালিমা লিপ্ত করার চক্রান্ত৷ বামপন্থীরা ভয় পাচ্ছে গেরুয়া শিবিরকে৷ তাই এই বিরোধিতা৷

তবে ইতিমধ্যেই এই পোস্টার সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে৷ সমালোচনার ঝড় উঠেছে রাজনৈতিক মহলে৷ যদিও এবিভিপির পক্ষ থেকে সব অভিযোগ অস্বীকার করা হচ্ছে৷ ১৪ই সেপ্টেম্বর ছিল জেএনইউতে ছাত্র সংসদের নির্বাচন৷ তার আগে এই রাজনৈতিক তরজায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি৷

এবিভিপির নাম করে দেওয়া ওই পোস্টারগুলিতে লেখা রয়েছে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানি রুখতে বদ্ধপরিকর এবিভিপি৷ তাই ক্যাম্পাস চত্বরে রাতের বেলায় ছাত্রীদের ঘোরাফেরা করা, ছোট পোশাক পরা, শুধু ভারতীয় ঐতিহ্যের অনুসারি জামা কাপড় পরা ও রাতে সেন্ট্রাল লাইব্রেরি খোলা রাখারা সময়সীমা মেয়েদের জন্য কমিয়ে দেওয়া-এই সব করবে এবিভিপি৷ চত্বরে যেন কোনও রকম বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয়, সেদিকে দল খেয়াল রাখবে৷

অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ ছাত্র সংসদের নির্বাচনে বামেদের বিরুদ্ধে চারটি পদে লড়ছে৷ শুক্রবার রাতে গণনা শুরু হবে, ফল ঘোষণা রবিবার সকালে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।