স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: বেহাল রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবা৷ মুখ্যমন্ত্রীর ডাকেও নবান্নের যেতে রাজি নয় আন্দোলনকারী জুনিয়র চিকিৎসকরা৷ ফলে শনিবারও স্বাভাবিক হল না বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের আউটডোর পরিষেবা৷ চরম হয়নি হয়ে বাড়ি ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছেন ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীরা৷ অসহায় অবস্থা রোগীর আত্মীয়দের৷

আরও পড়ুন: খোদ অনুব্রত মন্ডলের খাসতালুকে তৃণমূলের গ্রামপঞ্চায়েত ছিনিয়ে নিল বিজেপি

হাসপাতালের জুনিয়র ডাক্তারদের লাগাতার কর্মবিরতি ও অবস্থানের জেরে সিনিয়র ডাক্তারদের ছুটি বাতিল করে আউটডোর পরিষেবা স্বাভাবিক করার চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু শুক্রবার আউটডোর পরিষেবা চালুর কয়েক ঘন্টার মধ্যে তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এই ঘটনায় বিক্ষোভে ফেটে পড়েন চিকিৎসা পরিষেবা নিতে আসা রোগী ও তাদের আত্মীয়রা। বেশ কিছুক্ষণ তারা হাসপাতালের সামনের রাস্তা অবরোধ করেন রোগীর পরিবার।

শনিবারের ছবিটা আরো ভয়াবহ। পূর্ব নির্ধারিত দিনে মারণরোগ ক্যান্সারের চিকিৎসা পরিষেবা নিতে এদিন হাজির হয়েছিলেন বেশ কিছু রোগী। কিন্তু আউটডোর বন্ধ থাকায় চিকিৎসার সুযোগ না পেয়ে তাদের বাড়ি ফিরে যেতে হচ্ছে। পশ্চিম মেদিনীপুরের গড়বেতা থেকে ক্যান্সার আক্রান্ত ছেলেকে ক্যামো দিতে আসা মহন্ত মাইতি বলেন, ‘‘সকাল সাড়ে সাতটায় এখানে পৌঁছেছি। এসে দেখছি হাসপাতালের দরজায় চাবি দেওয়া। এখন বিনা চিকিৎসায় বাড়ি ফিরে যাওয়া ছাড়া কোন উপায় নেই৷’’

একই অভিজ্ঞতার কথা শোনালেন, সুবল পাত্র। তিনি বলেন, ‘‘ভোর তিনটেয় বাড়ি থেকে বেরিয়েছি। এখন বাড়ি ফিরতেও রাত প্রায় ন’টা বাজবে। হাসপাতালের তরফে আজ ক্যামোর তারিখ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু হাসপাতাল বন্ধ থাকায় ফের সোমবার আসতে হবে।’’

বাঁকুড়া শহরের বাসিন্দা ব্রজবাসী সেন তার মাকে নিয়ে আউটডোরে চিকিৎসা করাতে এসেছিলেন। প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘‘এখন তো ভোট পেরিয়ে গেছে। তারা তাই ‘চোখ বন্ধ’ করে আছেন।’’ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ভূমিকার কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘‘উনি ‘ভালো হলে’ এই পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হতো না।’’ এই পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ‘বিনা চিকিৎসা’য় থাকা ছাড়া কোন উপায় নেই বলেই তিনি জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন: চাপ বাড়িয়ে ফের মমতার কাছে রিপোর্ট চাইল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক

অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে গত কয়েক দিনের মতো এদিনও হাসপাতালে পর্যাপ্ত পুলিশ বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। যদিও কবে হাসপাতালের আউটডোর পরিষেবা স্বাভাবিক হবে সে নিয়ে কর্ত্তৃপক্ষের তরফে কোন প্রতিক্রিয়া মেলেনি।