কলকাতা: করোনায় লকডাউনের জেরে অর্থনৈতিক মন্দা পৃথিবীজুড়ে। ব্যতিক্রম নয় ভারতবর্ষও। আর সেই আর্থিক মন্দার প্রভাব এসে পড়েছে দেশের বিভিন্ন ক্লাব এবং স্পোর্টস গভর্নিং বডিগুলিতেও। মন্দার জেরে কর্মী থেকে শুরু করে অ্যাথলিটদের পারিশ্রমিকে কাটছাঁট চলছে। কর্মী ছাঁটাইয়ের রাস্তাতেও হাঁটতে হয়েছে বিভিন্ন সংস্থাকে। ভারতীয় ফুটবলেও এমন ছবি লক্ষ্য করা গিয়েছে।

আইএসএলে কেরালা ব্লাস্টার্স আসন্ন মরশুমে চুক্তিবদ্ধ ফুটবলারদের সঙ্গে আর্থিক চুক্তির পরিমাণ কমাতে বাধ্য হয়েছে। নবনিযুক্ত আই লিগ জয়ী কোচ কিবু ভিকুনারও পারশ্রমিক সংকোচন করা হতে পারে বলে খবর। এমন সময় সম্পূর্ণ ভিন্ন মেরুতে হাঁটছে আইএসএলের কলকাতা ফ্র্যাঞ্চাইজি এটিকে। বেতন বা পারিশ্রমিকে কাটছাঁটের তো প্রশ্নই নেই, বরং ২০১৯-২০ মরশুমে আইএসএল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য ফুটবলারদের জন্য যে বোনাসের ঘোষণা করেছিল গোয়েঙ্কা অ্যান্ড কোম্পানি, তাতেও কোনওরকম অর্থ সংকোচন করা হবে না। জানানো হয়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজির তরফ থেকে।

কলকাতার ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটির সূত্রে খবর, স্কোয়াডের নিয়মিত ফুটবলাররা ঘোষণা মতো ১৫ লক্ষ টাকা করেই বোনাস পাবেন। পাশাপাশি স্কোয়াডের অনিয়মিত ফুটবলাররা পাবেন ৬-৮ লক্ষ টাকা করে বোনাস। আর্থিক মন্দার মধ্যেও কর্তৃপক্ষের এহেন সিদ্ধান্তে স্বভাবতই খুশি আইএসএল জয়ী ফুটবলাররা। উল্লেখ্য, লকডাউনের জেরে দেশের মাটিতে খেলাধুলা বন্ধ হওয়ার ঠিক আগে (১৪ মার্চ) চেন্নাইয়িন এফসি’কে হারিয়ে তৃতীয়বারের জন্য আইএসএল খেতাব জিতে নেয় এটিকে।

গত দু’মরশুম আশাব্যঞ্জক ফল না হওয়ায় ২০১৯-২০ মরশুমে ফের স্প্যানিশ ঘরানায় ফিরে বাজিমাত করে তাঁরা। ফিরিয়ে আনা হয় প্রথম মরশুমে চ্যাম্পিয়ন করা করা কোচ অ্যান্তোনিও লোপেজ হাবাসকে। আপফ্রন্টে ফুল ফোটান ওয়েলিংটন ফোনিক্সের দুই প্রাক্তনী রয় কৃষ্ণা এবং ডেভিড উইলিয়ামস। করোনা আবহেই দর্শকশূন্য গোয়ার ফতোরদা স্টেডিয়ামের দক্ষিণের ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটিকে হারিয়ে খেতাব নিশ্চিত করে এটিকে।

আগামী মরশুমে যদিও মোহনবাগানের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে নতুনরূপে আত্মপ্রকাশ করবে তাঁরা। দিনকয়েক আগে এটিকে-মোহনবাগানের সঙ্গে আরও একবছর চুক্তি বর্ধিত করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গত মরশুমের সর্বোচ্চ গোলস্কোরার ফিজি স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ