নয়াদিল্লি: করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৩৫০-এর কাছাকাছি। এই পরিস্থিতিতে সব ধরনের যাত্রীবাহী ট্রেন বন্ধ করে দিল রেল।

রবিবার একদিকে যখন জনতা কার্ফু চলছে, তার মধ্যেই রেল পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হল।

২২ মার্চ অর্থাৎ রবিবার থেকে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত কোনও যাত্রীবাহী ট্রেন চলবে না। কেবলমাত্র মালগাড়ি যাতায়াত করতে পারবে।

ইতিধ্যেই ৩০০ ছাড়িয়েছে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, ৩১৫ জন এখনও পর্যন্ত এই রোগে আক্রান্ত। সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই এই সিদ্ধান্ত।

রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নির্দেশ মত জারি হয়েছে জনতা কার্ফু। এদিন সকাল ৭ টাকা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত কেউ বাড়ি থেকে বেরচ্ছেন না। ট্রেন চলাচলও বন্ধ রয়েছে। আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানা গিয়েছে।

আগেই বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, শনিবার মধ্যরাত থেকে রবিবার রাত ১০টা পর্যন্ত কোনও যাত্রী ট্রেন যাত্রা করবে না। আবার মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেনগুলি ভোর ৪টে নাগাদ যে যেখানে পৌঁছবে, সেখানেই থেকে যাবে। সেই মতো রাতেই এক গুচ্ছ ট্রেন বাতিল করা হয়।

রবিবার সকালে দিল্লি এবং মুম্বই স্টেশনের যে ছবি এসে পৌঁছেছে তাতে দেখা যাচ্ছে পুরো ফাঁকা স্টেশন চত্বর। কাউকে দেখা যাচ্ছে না। তবে দিল্লির স্টেশনে বেশ কিছু যাত্রীকে দেখা যাচ্ছে। কিন্তু সমস্ত ট্রেন বাতিল থাকায় সমস্যা পড়েছেন তাঁরা। নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে পারছেন না তাঁরা।