ইন্দোর: ২০১৩ থেকে এখনও পর্যন্ত ঘরের মাঠে মোট ৩২টি টেস্ট খেলেছে ভারত৷ ২৬টি ম্যাচে জিতেছে তারা৷ ড্র হয়েছে ৫টি টেস্ট৷ মাত্র ১টি ম্যাচে হেরেছে টিম ইন্ডিয়া৷ এই পরিসংখ্যানটাই যথেষ্ট নিজেদের দূর্গে ভারতীয় দলের একাধিপত্য বোঝাতে৷ তার উপর বেশ কিছু বিষয় টিম ইন্ডিয়াকে বাড়তি আত্মবিশ্বাস যোগাচ্ছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে খেলতে নামার আগে৷

ঘরের মাঠে টানা ১১টি টেস্ট সিরিজ জয় ছাড়াও চলতি আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে এখনও পর্যন্ত অপরাজিত রয়েছে ভারত৷ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে ঘরে-বাইরে পর পর দু’টি টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করেছে কোহলিরা৷ স্বাভাবিকভাবেই তুলনায় দূর্বল বাংলাদেশকে কোহলিদের বিরুদ্ধে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে কেউই বিশেষ আমল দিতে রাজি নয়৷ তবে ভারতীয় দল প্রতিবেশী দেশকে খাটো করে দেখতে নারাজ৷

আরও পড়ুন: শাকিব একাই দু’জন ক্রিকেটারের সমান: মোমিনূল

৫ ম্যাচে ২৪০ পয়েন্ট নিয়ে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শীর্ষস্থান মজবুত করেছে বিরাট কোহলিরা৷ ২টি সিরিজের পর কোহলিদের ধারে কাছে কেউ নেই৷ বাংলাদেশ ইন্দোরেই শুরু করছে তাদের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ অভিযান৷ দিল্লির টি-২০ ম্যাচে মেন ইন ব্লু’দের চমকে দিলেও টেস্ট ফর্ম্যাটে টাইগারদের পেরে ওঠা মুশকিল৷ বিষয়টা বোঝে বাংলাদেশও৷ সেকারণেই তারা নিজেদের আন্ডারডগ মেনে নিতে কুণ্ঠা বোধ করছে না৷

বাংলাদেশ এই সিরিজে পাচ্ছে না দলের প্রধান দুই স্তম্ভ শাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালকে৷ শাকিব নির্বাসনে থাকায় তাঁর মাঠে নামার কোনও প্রশ্ন ছিল না৷ তামিম ব্যক্তিগত কারণে সরে দাঁড়িয়েছেন ভারত সফর থেকে৷ দুই মহাতারকার অনুপস্থিতিতে বাংলাদেশ এক ঝাঁক তরুণ ক্রিকেটারর উপর নির্ভার করতে বাধ্য৷

আরও পড়ুন: সৌরভকে সরে যেতে হলে সেটা হবে লজ্জার: গম্ভীর

ভারতীয় দলে অবশ্য বুমরাহর মতো বড় নাম অনুপস্থিত থাকলেও তাঁর অভাব ঢাকতে বদ্ধপরিকর উমেশ যাদবরা৷ ইন্দোরের পিচে ঘাস দেখে কোহলি ইঙ্গিত দিয়েছেন তিন জন বিশেষজ্ঞ পেসারে দল সাজানোর৷ সেক্ষেত্রে পাঁচ জন বোলারের ফর্মুলা ধরে রাখতে পারে টিম ইন্ডিয়া৷ শামি, ইশান্ত, উমেশ যাদব ক্রয়ীর সঙ্গে প্রথম টেস্টে মাঠে নামতে চলেছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজা৷ ভারত যে ফর্মুলাতেই মাঠে নামুক না কেন, বাংলাদেশেকে যে টেস্ট সিরিজে অগ্নিপরীক্ষায় নামতে হবে, তা এক প্রকার নিশ্চিত৷