নিউজ ডেক্স, কলকাতা: সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে চমকপ্রদ জনসমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় ফিরেছে বিজেপি৷ শক্তিশালী মন্ত্রীসভা গঠনের জন্য ৩০ তারিখ শপথ নেবেন বিজেপির ৩০৩ জন সাংসদদের অনেকে৷ তবে বিজেপির এই বিশাল জয়ে কী প্রতিফলিত হল দেশের প্রায় ১৭কোটি মুসলিমদের জনমত৷ হ্যাঁ বা না তে এই উত্তর দেওয়া সম্ভব নয়৷ কারণ বিজেপি প্রার্থীরা এমন অনেক জায়গাতেও জিতেছেন যেখানে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ প্রচুর রয়েছেন৷

তবে আশ্চর্যজনকভাবেই বিজেপির হিন্দুত্ব নীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে দলের জয়ী ৩০৩ সাংসদদের মধ্যে একজনও মুসলিম নন৷ অর্থাৎ ভারতের সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দলের হয়ে কোনও মুসলিম প্রতিনিধি পার্লামেন্টে যাচ্ছে না৷

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে সারা দেশে এবার মোট ৬জন মুসলিম প্রার্থী দিয়েছিল বিজেপি৷ যার তিনজন জুন্মু ও কাশ্মীরে এবং দুজন মুসলিম প্রার্থী বাংলা থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন৷ বাংলা এবং কাশ্মীরে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির মুসলিম প্রার্থীরা জিততে পারেননি৷ তবে বিজেপির জয়ী সাংসদদের তালিকাতে মুসলিম না থাকলেও এনডিএ সাংসদদের তালিকাতে একজন মুসলিম প্রার্থী রয়েছেন৷ মেহবুব আলি কাইজার৷ ইনি রামবিলাস পাসোয়ানের লোক জনশক্তি দলের সাংসদ৷ বিহারের খাগাড়িয়া কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছেন৷

বিজেপির জয়ী সাংসদের একজনও মুসলিম না হলেও ষোড়শ লোকসভার তুলনায় সপ্তদশ লোকসভায় মুসলিম জনপ্রতিনিদিদের সংখ্যা বেড়েছে৷ গত লোকসভায় সংসদে মুসলিম জনপ্রতিনিধিদের সংখ্যা ছিল ২২৷ এবার তা বেড়ে হয়েছে ২৬ জন৷ এর জন্য বিরোধীদেরই কৃতিত্ব প্রাপ্য৷ এই ২৬ জন মুসলিম প্রতিনিধিদের মধ্যে ২৫ জনই বিরোধী শিবিরের৷ বিরোধী দলের মধ্যে কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসই সবথেকে বেশি মুসলিমদের প্রার্থী করেছে৷ এই দুই দল থেকে পাঁচ জন করে মুসলিম প্রার্থী এবার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন৷ সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজ পার্টি এবং ন্যাশনাল কনফারেন্স থেকে তিনজন মুসলিম জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন৷