বার্লিন: রাশিয়ান ভ্যাকসিনের গুনগতমান ও সুরক্ষা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করল জার্মানি। পাশাপাশি মনে করিয়ে দেওয়া হল, সম্পূর্ণ ক্লিনিকাল ট্রায়ালের পরেই ইউরোপীয় ইউনিয়নে ড্রাগের অনুমোদন দেওয়া হয়।

রাশিয়ার আবিষ্কৃত করোনার ভ্যাকসিন সম্পর্কে বলতে গিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এক আধিকারিক জার্মান পত্রিকা নেটওয়ার্ক আরএনডিকে বলেছেন, “রাশিয়ান ভ্যাকসিনের গুণমান, কার্যকারিতা এবং সুরক্ষা সম্পর্কে কোনও তথ্য নেই।”

উল্লেখ্য, রাশিয়ার এই চটজলদি করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে আসাকে অনেকেই সন্দেহের চোখে দেখছেন। যদিও খোদ পুতিন জানিয়েছেন, তাঁর মেয়ে এই টিকা নিয়েছেন, তবুও বেশিরভাগ দেশই চাইছেন ট্রায়াল দিয়ে তারপরেই ভ্যাকসিন নিতে। হু জানিয়েছে, ভ্যাকসিনের ব্যাপারে তাঁরা রাশিয়ার সঙ্গে কথা বলবে।

আরও পড়ুন – আগে ৩ লাখ দিন, তারপর ভর্তি’, শেষে অ্যাম্বুল্যান্সের মধ্য়েই পড়ে থেকে মৃত্যু করোনা রোগীর

রাশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রক আগেই জানিয়েছিল যে এই ভ্যাক্সিন বিশ্বে সাড়া ফেলবে। উপকার হবে সাধারণ মানুষের। কিন্তু কীভাবে কাজ করবে এই ভ্যাক্সিন। এই সম্পর্কে মস্কোর গ্যামলিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর আলেকজান্ডার গিন্টসবার্গ জানান, এই ভ্যাক্সিন কিছু জড় বা নিষ্প্রাণ পার্টিকলস তৈরি করবে। শরীরের অ্যাডিনো ভাইরাসের উপস্থিতির প্রেক্ষিতে এগুলো তৈরি হবে।

সেখান থেকেই তৈরি হবে করোনা ভাইরাসের মোকাবিলা করার মত অ্যান্টি বডি। এখনও পর্যন্ত এই ভ্যাক্সিনের কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি বলে গ্যামলিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউট জানাচ্ছে।

মস্কোর তরফ থেকে পরিকল্পনা করা হয়েছে যে, অক্টোবরেই ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে। মাস ভ্যাক্সিনেশন অর্থাৎ বহু মানুষকে একসঙ্গে ভ্যাক্সিন দেওয়ার পরিকল্পনা তৈরি করা হচ্ছে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও