নয়াদিল্লি: হিন্দি ভাষা আরোপের বিরোধীতায় সরব তামিল রাজনৈতিক দলগুলি৷ জাতীয় শিক্ষা নীতির খসড়া প্রয়োগ হলে তা হবে বিপর্যয়৷ কেন্দ্রকে হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছে ডিএমকে, এআইএডিএমকে, পিএম৷ শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ৷ এই পরিস্থিতিতে সুর নরম মোদী সরকারের৷ কেন্দ্রের তরফে জানিয়ে দেওয়া হল কে কস্তুরীরঙ্গন কমিটির খসড়া সুপারিশ মাত্র৷ তার বাস্তবায়ন বিবেচনার বিষয়৷

দ্বিতীয় মোদী সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর বলেন, ‘‘কেন্দ্রীয় সরকার জাতীয় শিক্ষা নীতির খসড়া নিয়ে কোনও সিদ্ধান্তে উপনিত হয়নি৷ বুঝতে হবে এটা একটা সুপারিশ মাত্র৷’’ শিক্ষায় বহুত্ববাদের কথা বলেছে দক্ষিণী রাজনৈতিক দলগুলি৷ জাভড়েকরের কথায় দেশের সব ভাষাকেই গুরুত্ব দেয় কেন্দ্র৷ খসড়ার উপর দেশবাসীর মতামতের ভিত্তিতেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি৷

আরও পড়ুন: হিন্দি বাধ্যতামূলক, কেন্দ্রকে হুঁশিয়ারি তামিল নেতাদের

উল্লেখ্য, প্রথম মোদী সরকারের আমলে মানবসম্পদ উন্নয়ক মন্ত্রকের দায়িত্বে ছিলেন প্রকাশ জাভড়েকর৷ তাঁর সময়েই গঠন করা হয় জাতীয় শিক্ষা নীতির কে কস্তুরীরঙ্গন কমিটি৷

যে জাতীয় শিক্ষা নীতির খসড়া নিয়ে এত বিতর্ক তাতে কী রয়েছে?
জাতীয় শিক্ষা নীতির প্রধান ছিলেন ইসরোর চেয়ারম্যান কে কস্তুরীরঙ্গন৷ তাঁর নেতৃত্বে জাতীয় শিক্ষা নীতির খসড়ায় উল্লেখ রয়েছে, স্কুলে তিনটি ভাষা শিক্ষা শেখা বাধ্যতামূলক৷ হিন্দিভাষী রাজ্যে হিন্দি, ইংরেজি ও যে কোনও একটি ভারতীয় আধুনিক ভাষা শিখতে হবে৷ অ-হিন্দি ভাষী রাজ্যে হিন্দি ইংরেজির সঙ্গে শিখতে পারা যাবে একটি আঞ্চলিক ভাষা৷

এতেই আগুনে ঘি পড়েছে৷ দক্ষিণী বিভিন্ন রাজ্যেআঞ্চলিক ভাষাকেই গুরুত্ব দেওয়া হয়৷ কস্তুরীরঙ্গন কমিটির খসড়া বাস্তবায়িত হলে তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ, কেরালা, কর্নাটকে আঞ্চলিক ভাষা তৃতীয় ভাষার মর্যাদা পাবে৷ যা তাদের পক্ষে মেনে নেওয়া অসম্ভব বলে রাজ্যগুলির তরফে ইতিমধ্যেই জানানো হয়েছে৷

কেন্দ্র হিন্দি ভাষা শিক্ষা জোড় করে আরোপ করতে চাইলে তা মানা হবে না৷ জানিয়ে দিয়েছে বিজেপির শরিক এআইএডিএমকে শাসিত তামিলনাড়ুর শিক্ষামন্ত্রী কে সেঙ্গোত্তাইয়ান৷ তাদের প্রতিবাদের কথা কেন্দ্রকে চিঠি লিখে জানিয়েছেন তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী কে পালানিস্বামী৷

আরও পড়ুন: স্কুলের মধ্যে সাপ, ত্রাতার ভূমিকায় শের সিং

বিপর্যয়ের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে এবারের লোকসভায় ভালো ফল করা আরেক তামিল রাজনৈতিক দল ডিএমকের তরফেও৷ কেন্দ্র জাতীয় শিক্ষা নীতির খসড়া বাস্তবায়িত করলে তা বিপর্যয়ের সামিল হবে বলে জানানো হয়েছে৷

এমডিএমকে নেতা ভাইকোর মন্তব্য, ‘এটা ভাষা যুদ্ধ’৷ তাদের স্পষ্ট ঘোষণা, তামিলনাড়ু তামিল ও ইংরেজি ছাড়া আর কোনও ভাষা স্কুলে পড়ানো বাধ্যতামূলক করা হবে না৷মক্কাল নিধি ময়াম নেতা কমল হাসান বলেছেন, তিনি হিন্দি সিনেমায় অভিনয় করেছেন৷ কিন্তু কোনও ভাষাই কোনও জাতির উপর চাপিয়ে দেওয়া ঠিক নয়৷

এরপরই এপ্রসঙ্গে মুখ খুলতে বাধ্য হয় কেন্দ্র৷ বিতর্ক ধামাচাপা দিতে আপাতত খসড়াকে কেবলমাত্র সুপারিশ বলেই ঢাল করতে চাইছে তারা৷