নয়াদিল্লি: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কোপ পড়ল কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের পকেটে।সরকারের পক্ষ থেকে স্পষ্ট করে জানানো হল, কেন্দ্রীয় সরকার কর্মীদের মহার্ঘ্য ভাতা ২০২১সালের ১ জুলাই পর্যন্ত বাড়াবে না।তারা কেবল পুরনো হারে মহার্ঘ্য ভাতার সুবিধা পাবেন।বর্তমানে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীরা ১৭ শতাংশ হারে মহার্ঘ্য ভাতা পেয়ে থাকে। কোভিড পরিস্থিতির জেরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, বর্তমান অতিমারি পরিস্থিতির কারণে অন্যান্য খাতে প্রচুর খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে, তাতে অন্যান্য দিক থেকে খরচ কেটে ভারসাম্য বজায় রাখার চেষ্টা করছে অর্থ মন্ত্রক। যদিও এই পদক্ষেপ কত দিনের জন্যে তা স্পষ্ট জানা যায়নি। আপতত বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এই পদক্ষেপ করা হয়েছে। আগের স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে এলে পুনরায় মহার্ঘ্য ভাতা বাড়ানো হবে বলে খবর।

অর্থ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আগামী ১৮ মাসের বকেয়া ডিএ-ও আপাতত মিলবে না। ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের ৩০ জুলাই পর্যন্ত যে ডিএ বয়েকা ছিল, সেটা দেওয়ার বিষয়ে কোনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে পারেনি কেন্দ্র। শুক্রবার একটি নির্দেশিকা জারি করে এমনটাই জানানো হয়েছে কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের তরফে। কেন্দ্রের বক্তব্য, যেহেতু করোনাকালে দেশের আর্থিক পরিস্থিতি আগের মতো নেই, সেই কারণে আপতত একে স্থগিত রাখা হচ্ছে।

২০২১ সালের ১ জুলাই থেকে ৪ শতাংশ হারে মহার্ঘ্য ভাতা বাড়ানোর কথা ছিল। মহার্ঘ্য ভাতার গণনাটি মূল বেতনের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়।ডিএ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে টিএও বাড়বে।ডিএ এবং টিএ বৃদ্ধির কারণে কেন্দ্রীয় কর্মীদের ভাতার পরিমান অনেকটাই বৃদ্ধি পেত।

এর আগে, অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর সংসদে বলেছিলেন যে ২০২১ সালের ১ জুলাই থেকে কেন্দ্রীয় কর্মচারী ও পেনশনভোগীদের জন্য মহার্ঘ্য ভাতা বাড়ানো হবে। যা ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে বাড়ানো হয়নি। যদিও সেই সময় দেশের করোনা পরিস্থিতি এতটা সঙ্কটজনক হয়ে ওঠেনি।মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্ত প্রভাব পড়বে ৩৫ লক্ষ কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীর উপর।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.