ডায়মন্ডহারবার: শিক্ষক, সরকারি কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি হোক না হোক টিএমসি গুন্ডারা সময়মতো পেমেন্ট পেয়ে যায়৷ বুধবার ডায়মন্ডহারবারের সুলতানপুরের জনসভায় এসে এভাবেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে আক্রমণ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷

দিদির রাজত্বে বাংলায় কেমন গুণ্ডাতন্ত্র চলছে মোদীর এদিনের ভাষণে তা বার বারই ঘুরে ফিরে এসেছে৷ আর সেকথা বলতে গিয়ে সাধারণ মানুষ শিক্ষক এবং সরকারি কর্মীরা কতটা অসহায় সেদিকটা নানা দিক থেকে তুলে আক্রমণ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তথা রাজ্য প্রশাসনকে ৷

মোদীর বক্তব্য, গতকাল কলকাতার রাস্তায় বিজেপির রোড-শো আটকাতে দিদির প্রশাসন এবং গুন্ডাবাহিনীকে কাজে লাগিয়েছিল৷ তবে কলকাতার মানুষ সেই চেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিয়েছে৷ যা বলতে গিয়ে তিনি বলেছেন, দিল্লি থেকে কলকতার মেজাজ বোঝা যায় না৷ কিন্তু গতকাল গোটা দেশ কলকাতার ছবি দেখেছে৷ দেখতে পেয়েছে কলকাতার মানুষের মেজাজ এবং ক্ষমতা বলে তিনি জানান৷

মোদীর বক্তব্য,এখানে কেউ কিছু মজা করলে রাজনৈতিক কারণে জেলে পুরে দিতে পারে ৷ এজন্য এখানে পুলিশ অফিসারেরা প্রচন্ড চাপে কাজ করে৷ সেকথা বলতে গিয়ে নমো উল্লেখ করেন কয়েক মাস আগে এখানে এক আইপিএস অফিসার আত্মহত্যা করেছে ৷

মোদীর মতে, ডায়মন্ডহারবারে পর্যটনের ভাল সম্ভাবনা রয়েছে কিন্ত তা হচ্ছে না গুন্ডাদের অত্যাচারে৷ জনসভায় তিনি বলেন, এখানে টিএমসি গুন্ডাতন্ত্র এমন ভাবে বিরাজ করছে যে সাধারণ মানুষ ভয়মুক্ত জীবন কাটাতে পারছে না ৷ এ রাজ্য ভয়মুক্ত জীবন কাটায় – তোলাবাজ গুন্ডা, সিন্ডিকেটের দাদা, চিটফান্ড নেতা কয়লা মাফিয়ারা৷ তবে দিদির গুন্ডাতন্ত্রের মেয়াদ উর্ত্তীর্ণ হয়ে গিয়েছে বলেও এদিন জনসভায় দাবি করেন মোদী৷