বিশ্বজিৎ ঘোষ, কলকাতা: ‘হার্মাদে’র মোকাবিলায় ‘হার্মাদ’ নয়৷ কারণ, বিজেপি মনে করছে, সন্ত্রাসের মাধ্যমে নিজেরই কবর খুঁড়ছে তৃণমূল কংগ্রেস৷

বামফ্রন্ট পরিচালিত পশ্চিমবঙ্গের পূর্বতন সরকারের আমলেও বিভিন্ন নির্বাচনে শাসকদলের বিরুদ্ধে উঠেছে সন্ত্রাসের অভিযোগ৷ বিভিন্ন নির্বাচনে তৎকালীন শাসকদলের বিরুদ্ধে রিগিংয়ের অভিযোগও করেছে এ রাজ্যেরই বর্তমান শাসকদল৷ আর, তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত সরকারের আমলের বিভিন্ন নির্বাচনে, শাসকদলের বিরুদ্ধে সেই একই অভিযোগ করছেন বিরোধীরা৷ যদিও, তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে বিভিন্ন সময় এমনও বার্তা প্রকাশ পেয়েছে যে, পূর্বতন বামফ্রন্ট পরিচালিত সরকারের আমলেই নির্বাচনের এমন সন্ত্রাস শিখেছে বর্তমান শাসকদল৷

এই প্রসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের সোনালি গুহ এমন মন্তব্যও করেছেন, কীভাবে ভোট করাতে হয়, সেটা সিপিএমের কাছ থেকেই তাঁরা শিখেছেন৷ এ দিকে, বিরোধী দল হিসাবে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে বিভিন্ন সময় পূর্বতন সরকারের প্রধান শরিক দল সিপিএমের ‘হার্মাদে’র বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে৷ আর, এ বার, বর্তমান শাসকদলের ‘হার্মাদে’র বিষয়টি উল্লেখ করছে গেরুয়া শিবির৷ তবে, বর্তমান শাসকদলের এই ‘হার্মাদে’র মোকাবিলার জন্য রাজ্য বিজেপি ‘হার্মাদে’র ব্যবহার করবে না বলেই জানিয়েছে৷ কারণ হিসাবে গেরুয়া শিবিরের এমনই ব্যাখ্যা যে, বিভিন্ন নির্বাচনে যেভাবে তৃণমূল কংগ্রেস সন্ত্রাস সৃষ্টি করছে, তার ফলে নিজেরই কবর খুঁড়ছে শাসকদল৷

রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক দেবশ্রী চৌধুরীর কথায়, ‘‘হার্মাদ নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের হার্মাদের মোকাবিলা করবে না বিজেপি৷ তৃণমূল কংগ্রেসের হার্মাদের মোকাবিলা বিজেপি জনশক্তির মাধম্যে করবে৷’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘২০০৫-’০৬-এ সিপিএম যেভাবে নির্বাচনে সন্ত্রাস সৃষ্টি করত রিগিং করত, সেই ভাবেই তৃণমূল কংগ্রেসও এখন নির্বাচনে সন্ত্রাসের মাধ্যমে রিগিং করছে৷ এর থেকে বোঝা যাচ্ছে, তৃণমূল কংগ্রেস ভয় পেয়েছে৷ পায়ের তলা থেকে যে মাটি সরে যাচ্ছে, সেটা বুঝতে পারছে শাসকদল৷ মানুষের উপর তৃণমূল কংগ্রেস আর ভরসা রাখতে পারছে না৷ না হলে, নির্বাচনে এ ভাবে সন্ত্রাস সৃষ্টি করতে হয়?’’

তবে, নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের এই সন্ত্রাস বিজেপির পক্ষে ভালো হচ্ছে বলেই মনে করছে এ রাজ্যের গেরুয়া শিবির৷ কেন, কীভাবে? দেবশ্রী চৌধুরী বলেন, ‘‘তৃণমূল কংগ্রেস যত বেশি সন্ত্রাস সৃষ্টি করবে, মানুষ তত বেশি বুঝতে পারবেন৷ সাধারণ মানুষও মনে করবেন, তাঁদের উপর আর আস্থা রাখতে পারছে না তৃণমূল কংগ্রেস৷ এ ভাবে তৃণমূল কংগ্রেস নিজেরই কবর খুঁড়ছে৷’’ একই সঙ্গে রাজ্য বিজেপির এই সাধারণ সম্পাদক অবশ্য বলেছেন, ‘‘মানুষ যেখানে ভোট দিতে পেরেছেন, সেখানে বুঝিয়ে দিয়েছেন যে তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেসের পাশে নেই৷’’

এই বক্তব্যের জন্য তাঁর ব্যাখ্যা, ‘‘পূজালি পুরসভার নয় নম্বর ওয়ার্ডের একটি বুথের পুনর্নির্বাচনে বিজেপি ২৪০ ভোটে লিড পেয়েছে৷’’ একই সঙ্গে দেবশ্রী চৌধুরী বলেন, ‘‘একই দিনে নির্বাচন৷ অথচ, পাহাড়ে দেওয়া হল সিআরপিএফ৷ আর, সমতলে দেওয়া হল রাজ্য পুলিশ৷’’ শুধুমাত্র তাই নয়৷ তিনি বলেন, ‘‘মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারেন, তার জন্য আগামী দিনে পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি নির্বাচনে আমরা কেন্দ্রীয় বাহিনী চাইব৷’’

ট্যাগ: অন্য ট্যাগের সঙ্গে দেওয়া যেতে পারে
এই কপির সঙ্গে দেওয়া যেতে পারে এমন অন্য তিনটি কপির হেডলাইন এবং লিঙ্ক

আরও পড়ুন:

নারদ-আতঙ্কে তৃণমূলে ‘আত্মতুষ্টি’, পঞ্চায়েতে ৪৫ হাজার বুথে নেই বিজেপি

তৃণমূলের হাইজ্যাকের মোকাবিলায় বিজেপির হুঁশিয়ারি বাহুবল

‘মিশন বাংলা’য় বিজেপির লক্ষ্য এবার মমতার স্বাস্থ্য দফতর