শেখর দুবে, কলকাতা: মোদী সরকার আবার যে ক্ষমতায় ফিরছে সেটা সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের আগেই আঁচ করা যাচ্ছিল৷ বাংলার মানুষও দুহাত তুলে সর্মথন করেছে বিজেপিকে৷ এই প্রথমবার বাংলায় দু-অঙ্কের ঘরে পৌঁছেছে বিজেপির লোকসভা সিট সংখ্যা৷ ২ থেকে সোজা ১৮, সাংসদ সংখ্যা বাড়লেও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীত্বের সংখ্যা বাড়ল না বাংলার৷ স্বাভাবিকভাবেই বিজেপির বিরুদ্ধে উঠছে বাংলার প্রতি বঞ্চনার অভিযোগ৷ যদিও এখনই সব সুযোগ শেষ হয়ে যায়নি বাংলার বিজেপি সাংসদদের৷

পূর্ব ঘোষণা মতোই বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতি ভবনে কয়েক হাজার অতিথির সামনে প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন নরেন্দ্র মোদী৷ সঙ্গেই ৫৭ জন বিজেপি ও এনডিও সাংসদ শপথ নিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীত্বের৷ যার মধ্যে বাংলা থেকে মন্ত্রীর সংখ্যা সেই দুই৷ আসানসোলের বিজয়ী সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় এবং রায়গঞ্জের বিজয়ী বিজেপি প্রার্থী দেবশ্রী চৌধুরী৷ ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বাংলা থেকে মাত্র দুটো সিট জিতেছিল বিজেপি৷ দুজনকেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিত্ব দিয়েছিল বিজেপি সরকার৷ কিন্তু এবার বাংলায় বিজেপি সাংসদদের সংখ্যাটা এক লাফে বেড়ে গিয়েছে ১৮তে তাই স্বাভাবিকভাবেই বাংলার মানুষ আশা করছিলেন কম করে একজন পূর্ণমন্ত্রী এবং কম করে তিন-চারজন প্রতিমন্ত্রী পাবে রাজ্য৷ কিন্তু এমনটা হয়নি৷ আর তাতেই কিছুটা হলেও মনক্ষুন্ন বাংলার মানুষ৷ এমনটাই জানাচ্ছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশ৷

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে বাংলাকে পাখির চোখ করেছিলেন মোদী-শাহ জুটি৷ লোকসভা ভোটে সাধারণ মানুষের সমর্থনই বিজেপিকে পায়ের তলার মাটি তৈরি করতে দিয়েছে৷ বাংলা তো দূর গুজরাটে দাঁড়িয়েও বাংলা নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে খোঁচা দিতে ছাড়েননি মোদী থেকে শাহ কেউই৷ তারপর ২৩ মের পর থেকে তো তৃণমূল সিপিএম ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার ধূম পড়ে গিয়েছে৷ শুধু ১৮টা লোকসভা সিটিই নয় ২০২১-এ রাজ্যের ব্যাটন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে নিজেদের হাতে নেওয়ার লড়াইয়ে নেমেছে বিজেপি৷

১৮ টা সাংসদকে পার্লামেন্টে পাঠালেন বাংলার মানুষ কিন্তু তাদের মধ্যে মাত্র দু’জন প্রতিমন্ত্রীত্ব দেওয়া বাংলার বিজেপি সমর্থকদের খুশি করেনি খুব একটা৷ বৃহস্পতিবার নরেন্দ্র মোদী সহ আরও ৫৭জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শপথ পাঠ করেন৷ সোশ্যাল মিডিয়াতে বিজেপি সমর্থকরা সোজাসুজি মোদী সরকারে বিরোধিতা না করলেও৷ বিজেপির মন্ত্রিসভায় বাংলার পূর্ণমন্ত্রী না থাকার বিরোধিতা অনেকেই করছেন৷