স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : ফ্রি-তে রেশনের বিরাট ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই রেশন তাঁদের চাই না। এমন প্রতিবাদেই সোচ্চার হল পশ্চিমবঙ্গ এসএলএসটি ক্যান্ডিডেট এসোসিয়েশন এবং ওয়েস্ট বেঙ্গল টিচারস জব ক্যান্ডিডেট অ্যাসোসিয়েশন। ঝাড়গ্রামে থেকে এই দুই সংগঠন তাঁদের এই প্রতিবাদে পথে নামল।

তাঁদের দাবি, ‘ গত কয়েক বছর ধরে পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষক নিয়োগে সরকারের অনীহা ও ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব সমস্যা বর্তমান প্রেক্ষাপটে স্নাতকোত্তর ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের কপালে ভাঁজ ফেলেছে , এছাড়াও নিয়োগ সংক্রান্ত বিভিন্ন দুর্নীতি ও বছরের-পর-বছর নবম থেকে দ্বাদশ পর্যন্ত SSC পরীক্ষা না হওয়ায় বিপাকে বিভিন্ন জেলার কয়েক লক্ষ শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতী। ২০২১ বিধানসভা ভোটের আগে নতুন এসএসসি র মাধ্যমে নবম – দ্বাদশ শিক্ষক নিয়োগ করতে হবে।’ এই দাবী নিয়েই সোমবার ঝাড়গ্রাম জেলার জেলা শিক্ষাদপ্তরে জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শককে (মাধ্যমিক) ডেপুটেশন দেয় পশ্চিমবঙ্গ এসএলএসটি ক্যান্ডিডেট এসোসিয়েশন এবং ওয়েস্ট বেঙ্গল টিচারস জব ক্যান্ডিডেট অ্যাসোসিয়েশন।

পশ্চিম মেদিনীপুর আগেই প্রতিবাদ জানিয়েছিল এবার প্রতিবেশী জেলা ঝাড়গ্রামের বি.এড পাশ যুবক যুবতীরা একই দাবী নিয়ে প্রতিবাদে নামে। সংগঠনের তরফে কয়েক দফা দাবী সহ স্মারকলিপি ডেপুটেশন কর্মসূচির মাধ্যমে জমা দেওয়া হয় মিছিল সহকারে। অরণ্যশহরের বুকে মিছিলে পা মেলান প্রায় চল্লিশ জন স্কুল শিক্ষক ও শিক্ষিকা চাকরি প্রার্থী যুবক যুবতী। ঝাড়গ্রাম থানার পুলিশের সহযোগিতায় শহরের রবীন্দ্র পার্ক থেকে শুরু হয়ে ঝাড়গ্রাম জেলাশহরের হৃৎপিণ্ড পাঁচমাথার মোড় পেরিয়ে জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শকের দপ্তর পর্যন্ত এই প্রতিবাদী পদযাত্রায় সদস্যদের হাতে ছিল প্ল্যাকার্ড।

তাঁরা তোলেন , ‘বিনামূল্যে চাইনা রেশন, চাকরী চাই সঙ্গে বেতন।’ সংগঠনের মূল দাবি গুলি, ২০২১ বিধানসভা ভোটের আগে নবম – দ্বাদশ নতুন করে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিয়োগপ্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতে হবে, সম্পূর্ণ দুর্নীতি মুক্ত প্যানেল করতে হবে,প্রতিবছর এসএসসি নিতে হবে, আনঅফিসিয়াল গেজেটিয়ারটি পর্যালোচনা করে শুধুমাত্র বিষয়ভিত্তিক পরীক্ষা নিতে হবে এমসিকিউ সিস্টেমে, প্রতিটি পরীক্ষার্থীর জন্য কার্বন কপির ওএমআর শীটের ব্যবস্থা,করতে হবে এবং প্রতি বছর এসএসসি পরীক্ষা চালু রাখতে হবে। ২০২০ এর অগাস্ট এর মধ্যে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে, ২০২০ এর ডিসেম্বরের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতে হবে।’ সংস্থার তরফে এদিনের কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেন আহ্বায়ক সত্যজিৎ দাস, দুর্যোধন হাঁসদা এবং সুমিত চ্যাটার্জি। তাঁরা জানাচ্ছেন , ‘ডিআই বিষয়গুলো গুরুত্ব সহকারে শোনেন এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়গুলো জানাবেন বলে সংগঠনকে আশ্বস্ত করেন। সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দ্রুত এই বিষয়ে সরকার কোনো সদর্থক পদক্ষেপ না নিলে তারা বৃহত্তর আন্দোলনে যাবেন।’

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।