ঢাকা: বোর্ডকে না জানিয়ে ধর্মঘটে যাওয়ার সিদ্ধান্ত দুঃখজনক। এমনই জানিয়ে দিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কর্ণধার নাজমুল হাসান পাপন। ঢাকায় সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, দেশের ক্রিকেটাররা যে ১১ দফা দাবির ভিত্তিতে ধর্মঘটে নেমেছেন তা রীতিমতো অবিশ্বাস্য। তবে সেই দাবি মানা হচ্ছে কিনা তা স্পষ্ট করেননি তিনি। তবে দেশের ক্রিকেট মহলে ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলেও দাবি করেন।

এর ফলে সোমবার থেকে ধর্মঘট শুরু করা বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মাঠে ফিরিয়ে আনার বিষয়টি ঝুলেই রইল। কারণ ক্রিকেটাররা জানিয়েছিলেন, তাঁদের দাবি মানা হলে ২২ গজের ধর্মঘট চলতেই থাকবে। বাংলাদেশের আসন্ন ভারত সফরের আগে বিষয়টি নিয়ে তীব্র আলোড়িত আন্তর্জাতিক ক্রীড়াঙ্গন ও ক্রিকেট মহল।

ক্রিকেটারদের ধর্মঘট নিয়ে মঙ্গলবার বিসিবি কর্মকর্তাদের বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলন করেন, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিনি বলেন, ক্রিকেটারদের কিছু বলার থাকলে আমাদের কাছে এসে বলবে। কিন্তু মিডিয়ার কাছে কেন। তিনি প্রশ্ন করেন, কোনও খেলোয়াড় বলতে পারবে তারা দাবি করেছে আর আমরা সেটা দেইনি। তাদের ২৪ কোটি টাকা বোনাস দিয়েছি। টাকার জন্য তারা খেলা বন্ধ করে দেবে বিশ্বাস করছে পারছি না। তাদের আচরণ অপ্রত্যাশিত-অবিশ্বাস্য।

তিনি বলেন, ‘ক্রিকেট নিয়ে একটা মহলে চক্রান্ত হচ্ছে। তারা প্রথমে ভেবেছিল বিসিবিকে আক্রমণ করে, অন্যান্য পরিচালককে আক্রমণ করে দেশের বাইরে আমাদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করা হচ্ছে। ভারত সফরে না গেলে আইসিসির বড় প্রতিক্রিয়া আসবে। যে দাবিগুলো আমাদের কাছে গেলেই তারা পাবে সেগুলো তারা আমাদের কাছে না এসে কেন মিডিয়ার কাছে গেল। এটা একটা ষড়যন্ত্র। হয়তো তারা নিজেরাও জানে না। দু’একজন জানতে পারে। তারা দেশের বিরুদ্ধে কাজ করছে বলে আমি মনে করি।’

এর আগে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা সোমবার সংবাদ সম্মেলন ১১ দফা দাবিতে ধর্মঘট ডাকেন। তাদের দাবি পূরণ না হলে সকল ক্রিকেটীয় কার্যক্রম বন্ধ থাকবে বলে জানান সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহরা। সামনে ভারত সফর। তার আগে অনুশীলন ক্যাম্প। জাতীয় লিগের তৃতীয় বিভাগের ম্যাচ।

পরিস্থিতি সামাল দিতে মঙ্গলবার দুপুরে জরুরি বৈঠকে বসেন বিসিবি’র কর্মকর্তারা। বিসিবি’র প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী জানান, দ্রুতই তারা ক্রিকেটারদের দাবি-দাওয়ার বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করবেন।