স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা: কলকাতা হাইকোর্টে কর্মবিরতি চলছে৷ এপ্রিলের তিন তারিখের আগে কর্মবিরতি শেষ হওয়ার তেমন কোনও সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না৷ এ দিকে, রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা নেওয়া শুরু হবে এপ্রিলের দুই তারিখ থেকে৷

আপাতত এই কয়েকটি তথ্যই রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে রাজ্য বিজেপির৷ শনিবার পঞ্চায়েত নির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণার কিছু ক্ষণ পরেই বিজেপি নেতা মুকুল রায় সাংবাদিক বৈঠকে জানান, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুসারে একবার নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেলে তা ফিরিয়ে নেওয়া যায় না৷ কিন্তু নির্ঘণ্ট নিয়ে মামলা করারও কোনও পথ খোলা নেই৷ হাইকোর্টে কর্মবিরতি৷

একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, এই কর্মবিরতি যদি এপ্রিলের তিন তারিখে প্রত্যাহার করেও নেওয়া হয়, তা হলেও কিছু করার নেই৷ কারণ, দুই এপ্রি মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার বিষয়টি শুরু হবে৷ মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার মাধ্যমে নির্বাচন পক্রিয়া শুরু হয়ে যাবে৷ কোর্টে মামলা করলেও তার আর কোনও গুরুত্ব থাকবে না৷

মুকুলের রায় জানিয়েছেন, সম্পূর্ণ ব্যাপারটাই রাজ্য সরকারের প্রি-প্ল্যানড৷ ১৯৭৮ থেকে নির্বাচন দেখছি৷ এই প্রথম একই দিনে রাজ্য সরকারের ভোটের দিন ঘোষণা এবং নির্বাচন কমিশনের ভোটের দিন ঘোষণা হল৷ তবুও ভোট ‘ওয়েলকাম’৷

১৯৯২-এর পুরোনো একটি মামলার উল্লেখ করে মুকুল রায় বলেন, ‘‘আমারই করা মামলা রাজ্য সরকার বনাম মুকুল রায়৷ সেখানে বলা আছে, নির্বাচন ঘোষণার আগে পরীক্ষার তারিখ, পরীক্ষার্থীদের সুবিধা দেখতে হবে৷ ১৪ তারিখ পর্যন্ত রাজ্যে পরীক্ষা চলবে৷ মাইক্রোফোনে কোনও প্রচার করা যাবে না৷ প্রচার হবে মাত্র ১৫ দিন৷ ভোটের প্রস্তুতির সময় ৩০ দিন৷’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘রাজ্য সরকার কাজ করে থাকলে, এত ভয় কেন? বিরোধীদের কণ্ঠরোধ করা হল কেন?’’