স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: পুজো পার্বন আসলেই একটা দৃশ্য খুব কমন! পৈতাধারি ব্রাহ্মণেরা সাইকেল নিয়ে এদিক সেদিক দৌঁড়ে বেরান৷ কারণ স্বল্পসময়ের তিথিতে সব বাড়িতেই পুজো কভার করতে হবে৷ তাই পুজো আসলেই পুরোহিত থেকে বাড়ির কর্তা৷ সকলেরই চিন্তা পুরোহিত আসবেন তো সময়মতো? সেই তালিকা থেকে বাদ নেই বালুরঘাটের ডাকরামন্দির পাড়াও৷ কিন্তু প্রতি বছর এই পুরোহিত টানাটানি থেকে রেহাই পেতে এই গ্রাম বেছে নিল বিকল্প পথ৷ সেটি হল গুগুল প্লেস্টোর৷

গুগল প্লেস্টোরের মন্ত্রপাঠে পৈতাধারী ব্রাহ্মণ ছাড়াই এই গ্রামে বাগদেবীর পুজো করলেন শিক্ষক গগন ঘোষ৷ অভাব ছিল না নিয়ম নিষ্ঠার৷ সঠিক নিয়ম মেনে চলল দফায় দফায় চলে পুষ্পাঞ্জলিও৷ গগন ঘোষের এই পুজোপাঠে খুশি প্রতিবেশীরাও৷ প্রতিবছরই পুরোহিত নিয়ে এক সমস্যা চলতেই থাকে৷ সেখানে গগন ঘোষ এই গুরুদায়িত্ব নিজের হাতে তুলে নেওয়ায় যারপরনাই খুশি পাড়া প্রতিবেশীরাও৷ তারাও এসে অঞ্জলি দিয়েছেন গগন ঘোষের বাড়িতে৷ গগন ঘোষ একদিকে শিক্ষক তথা সাহিত্যিক৷ বাগদেবীর সামনে পুরোহিতের আসনে গগণ ঘোষ বসলেও আসল ব্রাহ্মণগিরী কিন্তু করেছে গুগল প্লে-স্টোরের মন্ত্রপাঠ আপস।

তবে, পুজো করতে নেটদুনিয়াকে ভরসা শুধু গগন ঘোষই করেননি৷ এই একই ভাবে গুগল অ্যাপসের সহায়ে বাগদেবীর পুজো সেরেছেন খাদিমপুরের নিখিল সরকার চকভবানীর সৌমেন দাসও।

কিন্তু শিক্ষক থেকে কেন হঠাৎ পুরোহিত হয়ে ওঠা? এই প্রসঙ্গে গগন ঘোষ জানিয়েছেন, কয়েক বছর আগে সরস্বতী পূজার দিন আগে থেকে পুরোহিত ঠিক করে রেখেও দুপুর অবধি তাঁকে পাওয়া যায়নি। রাস্তা দিয়ে যাওয়া অন্য পুরোহিতের হাতে পায়ে ধরেও পুজো করানো যায়নি। তখন বাধ্য হয়েই তিনি গুগল প্লে-স্টোর থেকে সরস্বতী পূজার বিধিনিয়ম ও মন্ত্রের আপস ডাউনলোড করে পুজা সারেন। সেই থেকে প্রত্যেক বছরই ব্রাহ্মণ ছাড়াই সরস্বতী পূজা তিনি নিজেই করে আসছেন৷