নয়াদিল্লি: ২৯ ডিসেম্বরের পর থেকে বন্ধ হয়ে যাবে সব চ্যানেল। এমনই খবর সম্প্রতি চাঞ্চল্য তৈরি করেছে দেশ জুড়ে। টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইন্ডিয়া বা TRAI-এর নয়া নির্দেশিকা থেকেই শুরু হয়েছে জল্পনা। তবে এবার সেই খবরের প্রকৃত সত্যতা জানাল খোদ TRAI.

বুধবার সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে ২৯ ডিসেম্বরের পর চ্যানেলগুলি ব্ল্যাক আউট হয়ে যাবে বলে যে তথ্য প্রচার হচ্ছে, তা ভুল। টিভি চ্যানেলের সার্ভিসে কোনও ব্যাঘাত ঘটবে না বলেই জানানো হয়েছে। সম্প্রতি টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অব ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে কেবল চ্যানেল এবং বিশেষত পে-চ্যানেল গুলির জন্য নির্দিষ্ট মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। আর এর থেকেই চ্যানেল বন্ধ হয়ে যাওয়ার খবর ছড়াতে শুরু করে।

অথরিটির তরফে জানানো হয়েছে, ”দর্শকরা যেসব টিভি চ্যানেল দেখতে পাচ্ছেন, তা ২৯ ডিসেম্বরের পরও দেখতে পাবেন। নতুন রেগুলেটরি ফ্রেমওয়ার্কের ফলে পরিষেবায় কোনও ব্যাঘাত ঘটবে না।”

TRAI-এই এই নয়া নির্দেশিকার উদ্দেশ্য, কেবল অপারেটরদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করা এবং গ্রাহকদের কাছ থেকে ইচ্ছেমত টাকা আদায় করতে না পারা। আরও বিশেষভাবে বলতে গেলে, ট্রাই-এর এই নির্দেশ অনুসারে গ্রাহকরা নিজেদের পছন্দমত চ্যানেল দেখবেন নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে।

বর্তমানে ১৭০-১৮০ টাকা মাসিক ভাড়ায় গ্রাহকরা প্রায় সমস্ত চ্যানেলই দেখতে পাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। কিন্তু সূত্রের খবর, নয়া নির্দেশিকা অনুসারে গ্রাহককে ১০০টি ফ্রি চ্যানেলের জন্য প্রায় ১৩০ টাকা দিতেই হবে। তার ওপর চাপবে পে -চ্যানেলের অর্থ জিএসটি সহ।

প্রতিমাসে এই বাড়তি অর্থ দিতে না পারায় অনেক গ্রাহকই কেবল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন কেবল অপারেটরা।