নয়াদিল্লি: ক্ষমতার লোভে বিহার বাসীদের ঠকিয়েছেন নীতীশ কুমার৷ বুধবার চুপ থাকার পর বিহার মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ ও পুনরায় শপথ গ্রহণ প্রসঙ্গে মুখ খুললেন কংগ্রেসের সহ সভাপতি রাহুল গান্ধী৷ একই সঙ্গে হতাশার সুরে বললেন, মহাজোট নিয়ে সাধারণ মানুষের অনেক আশা ছিল৷ মাঝ পথেই তা নষ্ট করে দিলেন জেডিইউ সুপ্রিমো৷

মোদীর কারণেই জঙ্গি হামলা বেড়েছে কাশ্মীরে: রাহুল গান্ধী

উপ মুখ্যমন্ত্রী তথা লালুপ্রসাদ যাদবের পুত্র তেজস্বী যাদবকে কেন্দ্র করে অনেকদিন ধরেই টালমাটাল অবস্থার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিল বিহারের মহাজোট সরকার৷ দুর্নীতির সঙ্গে কোনও রকম আপোষ করা হবে না বলে জানিয়েছিলেন নীতীশ কুমার৷এই পরিস্থিতিতে জোট সরকারের ভবিষ্যৎ নিয়ে যখন চর্চা চলছে ঠিক তখনই সবাইকে অবাক করে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিলেন নীতীশ কুমার৷ শুধু ইস্তফা দিলেনই না৷চার বছর পর ফের বিজেপিকে সঙ্গে নিয়ে বৃহস্পতিবার নতুন সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন তিনি৷

যা নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই অগ্নিশর্মা আরজেডি সুপ্রিমো লালুপ্রসাদ যাদব৷২০১৯ নির্বাচনের আগে ফের এক রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় চলে আসায় হতাশ কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গান্ধীও৷ বৃহস্পতিবার বিহার প্রসঙ্গে সোনিয়া পুত্র বলেন, ‘‘এটাই ভারতীয় রাজনীতির সমস্যা৷ ক্ষমতার জন্য মানুষ যা খুশী তাই করে দয়৷’’

রাতে মুখ্যমন্ত্রীর পদে ইস্তফা দিয়ে সকালেই ফের শপথ নিলেন নীতীশ

এদিন রাহুল আরও বলেন, ‘‘এই ঘটনা আজকের নয়৷ বিগত তিন-চার মাস ধরে ভেতর ভেতর এই পরিকল্পনা চলছিল৷ বোঝা গিয়েছিল সেটা৷ আমি সচেতন ছিলাম৷’’ সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধেই মানুষ ২০১৫তে ভোট দিয়েছিল৷ নীতীশ কুমারের বিহারের সেই মানুষগুলিকে ঠকালেন বলেও এদিন দাবি করেন রাহুল গান্ধী৷