নয়াদিল্লি : প্রথম মহিলা অর্থমন্ত্রী পেল ভারত৷ ইন্দিরা গান্ধীর পর দেশের অর্থমন্ত্রকের ভার সামলাবেন নির্মলা সীতারমণ৷ মোদী সরকারের প্রথমবারের ক্যাবিনেটে প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নির্মলাকে পেয়েছিল দেশ৷ তবে ৪৮ বছর পরে এই প্রথম মহিলা অর্থমন্ত্রী পেল ভারত৷

১৯৬৯ সালের জুলাই মাস থেকে ১৯৭০ সালের জুন মাস পর্যন্ত অর্থমন্ত্রকের ভার সামলেছিলেন ইন্দিরা গান্ধী৷ তবে পূর্ণ সময়ের জন্য স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবে নির্মলা সীতারমণই প্রথম মহিলা অর্থমন্ত্রী হলেন৷ ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির বিপুল জয়ের কারিগর হিসেবে মোদী-শাহ জুটিকে ধরা হলেও, মোদীর মন্ত্রীরাও সমান অবদান রেখেছিলেন৷

আরও পড়ুন : নজরে বিহার, কৌশলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীত্ব নিলেন না নীতীশ

বৃহস্পতিবারই রাষ্ট্রপতি ভবনে ৬০০০ মানুষের সামনে শপথ নেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ক্যাবিনেট সদস্যরা৷ ২৪ জন ক্যাবিনেট মিনিষ্টার, ৯ জন স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত রাষ্ট্রমন্ত্রী ও ২৪ জন রাষ্ট্রমন্ত্রী এদিন শপথ নেন৷ এরমধ্যে নির্মলা সীতারমণও ছিলেন৷ ১৩ বছর আগে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন নির্মলা৷ তামিলনাড়ুর তিরুচিরাপল্লিতে ১৯৫৯ সালের ১৮ই অগাষ্ট জন্মগ্রহণ করেন নির্মলা সীতারমণ৷

বাবা ছিলেন ভারতীয় রেলের কর্মী ও মা গৃহবধূ৷ অর্থনীতিতে স্নাতক হওয়ার পরে জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাশ করেন নির্মলা৷ ২০০৬ সালে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করেন তিনি৷ ২০১০ সালে জাতীয় মুখপাত্র হিসেবে নির্বাচিত হন৷ ২০১৪ সালে প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ক্যাবিনেটে মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন নির্মলা সীতারমণ৷ সীতারমণ ভারতের দ্বিতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী৷ ইন্দিরা গান্ধীর পরে সীতারমণই মহিলা মন্ত্রী হিসেবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের দায়িত্ব সামলেছেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।