নয়াদিল্লি: নানা ভাবে কর সন্ত্রাশের শিকার হতে হচ্ছে বলে প্রায়শই অভিযোগ তোলে শিল্পমহল৷ আর সেই হেনস্তা থেকে উদ্ধার করতে এগিয়ে এলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন৷ তিনি জানিয়ে দেন, এমন কোনও হেনস্তার মুখে পড়লে সরাসরি তাঁকে জানানো যাবে৷ ৷ পাশাপাশি তিনি আশ্বাস দেন, দ্রুত এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে৷

সম্প্রতি কাফে কফি ডে-র প্রতিষ্ঠাতা ভি জি সিদ্ধার্থ নিখোঁজ এবং পরে মৃত্যু ঘিরে এ কর সংক্রান্ত হেনস্তা বিষয়টা বেশ মাথা চারা দিয়ে ওঠে ৷ কারণ মৃত্যুর আগে তাঁর লেখা চিঠিতেও তেমন ইঙ্গিত ছিল৷ যার জেরে কিরণ মজুমদার শ, মোহনদাসপাইয়ের মতো ব্যক্তিত্বরা কেন্দ্রের দিকে আঙুল তোলে৷ এদিকে শুক্রবার দিল্লিতে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর সামনে এই প্রসঙ্গে উঠলে তিনি শিল্পমহলকে আশ্বস্থ করেন৷ তিনি জানান, এই নিয়ে পোর্টাল খোলার ভাবনা রয়েছে৷ এই সমস্যা সমাধানের জন্য তিনি দ্বিতীয় সারির শহরে গিয়েও ব্যবসায়ী শিল্পপতিদের সঙ্গে বৈঠক করবে এবং তখন তাঁর সঙ্গে আয়কর ও ইডির প্রতিনিধিরা থাকবেন৷

প্রসঙ্গত, কাটমানি থেকে শুরু করে রাজ্যের মানুষের অভাব অভিযোগ শুনতে এবং জনগনের সমস্যা সুরাহা করতে সম্প্রতি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ‘দিদিকে বলো’ বলে এক অভিনত উদ্যোগ নিয়েছেন৷ এই জন্য একটি বিশেষ ফোন নম্বরই দেওয়া হয় এবং রাজ্যের জনগণকে উৎসাহ নিয়ে ‘দিদিকে বলো’-তে ফোন করতে দেখা যায়৷ এবার রাজনৈতিক এবং শিল্পমহলের অনেকে নির্মলার এমন উদ্যোগ দেখে মমতার ‘দিদিকে বলো’-র সঙ্গে মিল খুঁজে পাচ্ছেন৷

এদিকে কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার নিয়ম না মানলে, জেলে পাঠানোর নিয়মেরও পর্যালোচনা হবে বলে আজ ফের আশ্বাস দিয়েছেন নির্মলা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.