স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: নিজের গড়েই ছাত্র বিক্ষোভের মুখে পড়লেন রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান নির্মল মাজি। মেডিক্যাল কলেজের প্রতিষ্ঠা দিবসে তাঁকে শুনতে হল, ‘গো ব্যাক’ স্লোগান। প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে নজিরবিহীন এই ঘটনা দেখে হকচকিয়ে যান অতিথিরাও। পড়ুয়ারা যখন বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন, মঞ্চে তখন উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিকর্তা শিক্ষাও।

মঙ্গলবার কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ১৮৬ তম প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠান ছিল। সেই উপলক্ষে মেডিক্যাল কলেজের প্রশাসনিক ভবনের সামনে ভারতের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। তারপরেই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসেন নির্মল মাঝি। তিনি মঞ্চের কাছে এলেই পড়ুয়াদের একাংশ ‘গো ব্যাক’ স্লোগান লেখা পোস্টার দেখিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখানো শুরু করেন।

নির্মল মাজিকে অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। তাও কেন তিনি এসেছেন? এই প্রশ্নে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন মেডিক্যাল কলেজের পড়ুয়ারা। বিক্ষোভকারীদের মধ্যে কিছু ছাত্র স্প্রে রঙ নিয়ে তৈরিই ছিলেন। মন্ত্রী গাড়ি থেকে নামতেই সক্রিয় হয়ে ওঠেন তাঁরা। অনুষ্ঠান মঞ্চের প্রবেশপথের দুধারে দাঁড়িয়ে সিএএ, এনআরসি নিয়ে স্লোগানও তোলেন ওই ছাত্ররা। রোগীকল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান নির্মল মাজির বিরুদ্ধে দ্বিচারিতার স্লোগানও দেন বিক্ষোভকারীরা।

ক্ষুব্ধ নির্মল মাজি বলেন, “বিক্ষোভ দেখানোর অধিকার সবার আছে।বাম আমলে আমরাও বিক্ষোভ দেখিয়েছি। কিন্তু এভাবে অনুষ্ঠান বিঘ্ণ ঘটিয়ে বিক্ষোভ দেখানোর অধিকার কারও নেই।” কিন্তু হবু ডাক্তারদের বিক্ষোভের তীব্রতা এতটাই ছিল যে শেষে মেজাজ হারিয়ে বেলাগাম হয়ে যান তিনি। বলেন, “বাজার দিয়ে হাতি গেলে পিছনে ঘেউ ঘেউ করে।এগুলোকে পাত্তা দেওয়ার দরকার নেই।” এরপরই ফের বিক্ষোভে ফেটে পড়েন ছাত্রছাত্রীরা। তাঁদের দাবি, “তাঁদের কুকুরের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে।” এই বিক্ষোভ চলাকালীন মেডিক্যাল কলেজ চত্বরে বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন করেন কর্তৃপক্ষ।

যদিও ছাত্রদের এই বিক্ষোভ নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনে কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি নির্মল মাজি। প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষেরও।