নয়াদিল্লি: বুধবার পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে ৯৯ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, বিবৃতি দিয়ে জানাল স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রক। এখনও পর্যন্ত বাংলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে, একইসঙ্গে ১৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী এখনও পর্যন্ত মহারাষ্ট্রেই সবচেয়ে বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মহারাষ্ট্রে বুধবার পর্যন্ত ১০১৮ জন মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যার নিরিখে মহারাষ্ট্রের পরেই রয়েছে তামিলনাড়ু। দক্ষিণের এই রাজ্যে এখনও পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা ৬৯০।

তারপরেই রয়েছে দিল্লি। রাজধানীতে এখনও পর্যন্ত ৫৭৬ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের প্রকাশিত বিবৃতিতে জানা গিয়েছে, বুধবার পর্যন্ত গোটা দেশে মোট ৫৭২৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। যাঁদের মধ্যে ৪১১ জন সুস্থ হয়ে ফিরেছেন। এদিন পর্যন্ত দেশে করোনায় মোট মৃত ১৪৯।

এদিকে, স্বাস্থ্যমন্ত্রক পশ্চিমবঙ্গে করোনা আক্রান্তের যে সংখ্যা বিবৃতিতে জানিয়েছে তার সঙ্গে রাজ্যের দেওয়া পরিসংখ্যানের মিল নেই। বুধবারই নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ৭১ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের বিভিন্ন হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা চলছে। আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা বাকিরাও কোয়ারান্টাইনে রয়েছেন।

বুধবারও রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিক বৈঠকে বসেন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বুধবার পর্যন্ত রাজ্যে ৭১ জন করোনা আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মিলেছে। আক্রান্তদের মধ্যে ৬১ জনই ১১টি পরিবারের সদস্য। মঙ্গলবারই এনআরএস হাসপাতালের মোট ৭৯ চিকিৎসক, নার্স-সহ স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়।

তাঁদের মধ্যে ৩০ জন চিকিৎসক, ৫ জন নার্স সুস্থ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। অন্যদিকে, বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত এখনও ১৬ জন ভর্তি রয়েছেন বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। আইডি হাসপাতাল থেকে বুধবারই ৩ জনকে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ