বাঙালি মেতে উঠবে আলোর উৎসবে। আর প্রতিবছরের মত এবারেও নিমতা সার্বজনীন শ্যামাপুজো কমিটি দর্শনার্থীদের জন্য নিয়ে এসেছে এক নতুন চমক। তাদের মাতৃ আরাধনার ২৭ তম বর্ষে তারা দর্শনার্থীদের জন্য নিয়ে এসেছে ‘কোলাম’। যা এবারের পুজোর এক অন্যতম আকর্ষণ।

এই থিমের অর্থ বৈদিক যুগে সৃষ্ট, দক্ষিণের সম্মান। এক কথায় শিল্প ও সংস্কৃতির এক আদি পর্যায় কে দর্শকদের সামনে তুলে ধরা হবে এই থিমের মাধ্যমে। ভারতবর্ষের বিভিন্ন রাজ্যর আলপনার ইতিহাস ও প্রকারভেদকে নিয়ে তৈরি হবে এই মণ্ডপ।অর্থাৎ এক কথায় বলা চলে বিভিন্ন প্রদেশের সংস্কৃতিকে নিয়ে আসা হবে এক ছাদের তলায়।

এই শিল্পের সৃষ্টি হয় আজ থেকে ৫০০০ বছর আগে। তারপর ক্রমেই এই শিল্পের প্রভাব ও তার চিন্তাভাবনা ছড়িয়ে পরে ভারতের দক্ষিণাংশে এবং পরিচিতি পায় কোলাম নামে। আর তাই এবারে দীপাবলি উপলক্ষে দর্শনার্থীদের জন্য এই থিমকে নিয়ে আসছেন পুজো কমিটি। আর বিভিন্ন রাজ্যর শিল্প ভাবনাও ফুটে উঠবে এই মণ্ডপে। দর্শনার্থীরা যাতে বিভিন্ন প্রদেশের সংস্কৃতির স্বাদ পায় তাই এই চেষ্টা করা হচ্ছে। থাকছে অন্ধ্রপ্রদেশ ও তেলেঙ্গানা, কর্ণাটক, উত্তর প্রদেশ, কেরল, মহারাষ্ট্র, গুজরাট,উত্তরাখণ্ডের শৈল্পিক নির্দেশনার ছাপ থাকবে এই মণ্ডপে।

আবহতে থাকবে বিভিন্ন প্রদেশের লোক সঙ্গীত। এছাড়া মাতৃমূর্তি থাকবে শঙ্খের ভেতরে। এক কথায় বলা চলে ভারতের বিভিন্ন প্রদেশের সংস্কৃতির এক টুকরো ছোট সংস্করণ হবে এই মণ্ডপে। এছাড়া থাকছে আরও আকর্ষণ। ইস্টবেঙ্গল ক্লাব কে সম্মান জানিয়ে মণ্ডপের রঙে থাকবে লাল হলুদের ছোঁয়া। বাঙালি ব্রতকথা থেকে দক্ষিণের পোঙাল অর্থাৎ দেশের সংস্কৃতির এক টুকরো ছোট গল্প উঠে আসবে এবারের মণ্ডপে।