চেন্নাই : তামিলনাড়ু জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে আইএসের লিংক৷ এই সূত্র ধরেই রাজ্য জুড়ে তল্লাশি চালাল জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ৷ তামিলনাড়ুর ১০টি জায়গায় তল্লাশি চলে সোমবার সারাদিন ধরে৷ ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ইতিমধ্যেই ৮জনকে গ্রেফতার করেছে এনআইএ৷ সেই সূত্র ধরেই এই তল্লাশি বলে জানা গিয়েছে৷

৮ই জানুয়ারি তিনটি জেলার ৮জন সন্দেহভাজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়৷ পুলিশ জানিয়েছিল, এদের বিরুদ্ধে আইএসের সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে৷ তাদের এনআইএর হাতে তুলে দেওয়া হয়৷ জিজ্ঞাসাবাদের মারফত কয়েকটি জায়গার উল্লেখ করে তারা৷

জেরায় জানা যায় ভারতের বিভিন্ন জায়গায় হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছে তারা৷ সোমবার তল্লাশি চালানো হয় অভিযুক্তদের বাড়িতে৷ এদের মধ্যে রয়েছে শেখ দাউদ, মহম্মদ রিয়াজ, সাদিক, মুবারিস আহমেদ, রিজওয়ান, হামিদ আকবার, সালেম ও চিদাম্বরম৷

আরও পড়ুন : মোদীর আমলে প্রথম সার্জিক্যাল স্ট্রাইক, কংগ্রেসের দাবি উড়িয়ে জানাল সেনা

এদিকে, বছরের শুরুতে আইএস যোগ সন্দেহে একাধিক জায়গায় তল্লাশি চালিয়েছিল এনআইএ৷ লুকিয়ে থাকা আইএসআইএস জঙ্গি ধরতে ফের অভিযান শুরু করেন গোয়েন্দারা৷ উত্তরপ্রদেশ ও পঞ্জাবের সাতটি জায়গায় তল্লাশিতে নামেন এনআইএ’র গোয়েন্দারা৷

গত বছর ২৬ ডিসেম্বর উত্তরপ্রদেশ ও দিল্লির ১৬টি জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে ১০ জঙ্গিকে গ্রেফতার করে এএনআই৷ জানতে পারেন, দেশে ফিঁদায়ে হামলার ছক কষেছে আইএস জঙ্গিরা৷ তাদের জেরা করে গোয়েন্দারা বেশ কিছু সূত্র পান৷ সেই সূত্র ধরেই এদিনের ধরপাকড়৷ এনআইএ’র আইজি অলোক মিত্তল সংবাদসংস্থা এএনআইকে জানান,সাতটি জায়গায় তল্লাশি চলে৷

ওইদিন এনআইএ দিল্লি ও উত্তরপ্রদেশ মিলিয়ে মোট ১৬টি জায়গায় তল্লাশি চালায়৷ জঙ্গি দমন শাখা, রাজ্য পুলিশ ও দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলের অফিসারদের নিয়ে এই ১৬টি জায়গায় হানা দেয় জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার গোয়েন্দারা৷ সূত্রের খবর, অনেকদিন ধরেই এই মডিউলের কাজকর্মের উপর নজর ছিল এনআইএ’র৷ এই ১৬টি জায়গা থেকে প্রচুর অস্ত্র, তলোয়ার, বিস্ফোরক, গ্রেনেড ও পিস্তল বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷ গ্রেফতার করা হয় ১০ জঙ্গিকে৷