হায়দরাবাদ: ইসলামিক স্টেট নিয়ে আলোচনা কিছুটা হলেও এখন কমেছে ভারতের মাটিতে। বর্তমানে ভারতের প্রায় সকলেরই এখন প্রধান আলোচিত বিষয় হচ্ছে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন।

এই সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের মুখে জঙ্গি সংগঠন আইএস-এর সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে দুই ব্যক্তিকে। শনিবার তাদের নিজামের শহর হায়দরাবাদ থেকে গ্রেফতার করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ।

ভারতের মাটিতে ইসলামিক স্টেট জংগি সংগঠনের প্রভাব অনুমান করা যায় বছর খানেক আগে থেকেই। সেই অনুযায়ী আসরে নামে গোয়েন্দা বিভাগ। ২০১৮ সালের অগস্টে গ্রেফতার করা হয় ভারতের আইএস জঙ্গি সংগঠনের অন্যতম প্রধান মহম্মদ আবদুল্লা বাসিত নামের এক ব্যক্তিকে। ওই বছরেই আরও তিন ব্যক্তিকে একই অভিযোগে গ্রেফতার করে এনআইএ।

সেই চার ধৃতদের মাস খানেক ধরে জেরা করেছে এনআইএ কর্তারা। সেই জেরা থেকে প্রাপ্ত তথ্য থেকে গত শণিবার দেশের দুই প্রান্তের দুই রাজ্যে অভিযান চালানো হয়। ওই দুই রাজ্য হচ্ছে তেলেঙ্গানা এবং মহারাষ্ট্র। সেই অভিযানেই হায়দরাবাদ থেকে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যাদের সঙ্গে মধ্য প্রাচ্যের জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের প্রত্যক্ষ যোগাযোগ ছিল বলে দাবি করেছে এনআইএ।

তেলেঙ্গানার রাজধানি শহর হায়দরাবাদ এবং মহারাষ্ট্রের ওয়ারদাহ-তে এই অভিযানে নানাবিধ ডিজিটাল সামগ্রি উদ্ধার করেছে এনআইএ। যেগুলি হল- ১৩টি মোবাইল, ১১টি সিম কার্ড, একটি আইপড, দু’টি ল্যাপটপ, একটি এক্সটারনাল হার্ড ডিস্ক, ছয়টি পেন ড্রাইভ, ছয়টি এসডি কার্ড এবং তিনটি ওয়াকিটকি। এছাড়াও নানাবিধ নথি উদ্ধার হয়েছে, যেগুলি থেকে ভারতের মাটিতে আইএস কার্যকলাপের একগুচ্ছ প্রমাণ মিলেছে বলে দাবি করা হয়েছে এনআইএ সূত্রে।

লোকসভা নির্বাচনের মুখে জঙ্গিযোগের অভিযোগে দুই ব্যক্তির গ্রেফতার হওয়ার ঘটনা খুব স্বাভাবিকভাবেই চাঞ্চল্যকর এবং উদ্বেগজনক। তবে এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের পক্ষ থেকে কিছু বলান হয়নি।